Date : 2022-12-03

ভোট পরবর্তী হিংসা মামলায় স্বস্তিতে অনুব্রত মণ্ডল। সুপ্রিম কোর্টে রক্ষাকবচ বহাল রাখল অনুব্রত মন্ডলের।

ষষ্ঠী চট্টোপাধ্যায়, সাংবাদিক : ভোট পরবর্তী হিংসা মামলায় অনুব্রত মন্ডলের রক্ষাকবজ দিয়েছিলেন কলকাতা হাই কোর্টের বিচারপতি রাজা শেখর মান্থা। কলকাতা হাইকোর্ট জানায়, এই মামলার তদন্তে সব রকম সাহায্য করতে হবে অনুব্রত মণ্ডলকে। কিন্তু তাঁর বিরুদ্ধে কোনও কঠোর পদক্ষেপ করতে পারবে না সিবিআই।

কলকাতা হাই কোর্টের সিঙ্গেল বেঞ্চের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে মামলা দায়ের করে সিবিআই। মামলার শুনানি ছিল সুপ্রিম কোর্টে। কিন্তু শুনানি ফের কিছুটা সময় চায় সিবিআই। ফলে এই মামলায় আপাতত কয়েকদিনের স্বস্তি পেয়েছিল বীরভূমের তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। মামলার পরবর্তী শুনানি আগামী ১৮ অক্টোবর।

মঙ্গলবার নির্ধারিত সময়ে মামলার শুনানি শুরু হয়। অনুব্রত মণ্ডল ও সিবিআই-দু’পক্ষের আইনজীবীই উপস্থিত ছিলেন। শুনানি শুরুর কিছু সময়ের পরই সিবিআই পক্ষ থেকে তারা সুপ্রিম কোর্টে জানায় ভোট পরবর্তী হিংসা মামলায় সিবিআই অনুব্রত মণ্ডল কে নিজেদের হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চায়। যদিও এই মুহূর্তে গরু পাচার মামলায় কেন্দ্রীয় আরও এক তদন্তকারী সংস্থা ই ডি হেফাজতে রয়েছে অনুব্রত মণ্ডল। কিন্তু কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অনুভূত মণ্ডল কে অন্তর্বর্তীকালীন রক্ষাকবচ দিয়ে রেখেছে যে কারণে ভোট পরবর্তী হিংসা মামলায় তদন্ত এগিয়ে নিজে দেখতে পাচ্ছে না সিবিআই তদন্তকারী আধিকারিকরা ।

অনুব্রত মণ্ডলের পক্ষের আইনজীবী মামলার শুনানিতে জানান কলকাতা হাইকোর্ট পরবর্তী হিংসা মামলায় আগেই তাকে রক্ষাকবচ দিয়েছিলেন একাধিকবার ভোট পরবর্তী হিংসায় অনুব্রত মণ্ডল মুখোমুখি হয়েছিলেন। পাল্টা সিবিআর পক্ষে আইনজীবী জানান যখনই তাকে জিজ্ঞাসাবাদ এর জন্য ডেকে পাঠানো হতো তখনই তিনি বিভিন্ন কারণ দেখিয়ে এড়িয়ে যেতেন। বেশ কয়েকবার অনুব্রত মণ্ডল কে নোটিশ পাঠানো হলেও তদন্তে কোনরকম সহযোগিতা করছে না তাই অনুব্রত মণ্ডল কে নিজেদের হেফাজতে নিয়েই ভোট পরবর্তী হিংসা মামলায় কলকাতা হাইকোর্টের বৃহত্তর বেঞ্চে নির্দেশ দিয়েছিল সেই নির্দেশ মতোই তারা তদন্ত করছে যে কারণে অনুব্রত মণ্ডল কে জিজ্ঞাসাবাদে প্রয়োজন আছে বলেই সুপ্রিম কোর্টে দাবি করেন সিবিআইয়ের আইনজীবীরা।

প্রসঙ্গত,২০২১ সালে বিধানসভা নির্বাচনের পর রাজ্য জুড়ে হিংসার অভিযোগ ওঠে। রাজ্যের একাধিক প্রান্তে বিজেপি কর্মীদের খুন, ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে। বীরভূমের ইলামবাজারে গৌরব সরকার নামে এক বিজেপি কর্মীকে পিটিয়ে খুনের অভিযোগ ওঠে। এই ঘটনায় নাম জড়ায় অনুব্রত মণ্ডল-সহ ২৪ জন তৃণমূল নেতা-কর্মীর।

সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি হেমন্ত গুপ্তা ও বিচারপতি সুধাংশু ধূলিয়ার ডিভিশন বেঞ্চ কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশই বহাল রাখলেন।