Date : 2022-12-06

আন্দোলনকারীদের আবেদন গ্রহণ করল কলকাতা হাইকোর্ট ২৮ শে অক্টোবর মামলার শুনানি সম্ভাবনা

ষষ্ঠী চট্টোপাধ্যায়, সাংবাদিক : বিচারপতি লপিতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে এবার কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হলো আন্দোলনকারী টেটের চাকরি প্রার্থীরা। প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের সদর দপ্তর এপিসি ভবনের সামনে গত সোমবার থেকে লাগাতার আন্দোলনে করছে ২০১৪ সালের টেটের চাকরি প্রার্থীরা। তাদের দাবি অবিলম্বে তাদেরকে নিয়োগ করতে হবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাদেরকে যে আশ্বাস দিয়েছিল সেই আশ্বাস মেনেই তাদের নিয়োগ দিতে হবে এই দাবিতেই লাগাতার তারা আন্দোলন কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছিলেন।

গত বুধবার এবং বৃহস্পতিবার প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের পক্ষ থেকে এবং একজন চাকরি প্রার্থীর কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন তাদের দাবি এপিসি ভবনে অর্থাৎ প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের অফিসে সেখানকার কোনো কর্মী আধিকারিকরা এই আন্দোলনে জেরে অফিসে প্রবেশ করতে পারছেন না। বিচারপতি লোপিতা বন্দ্যোপাধ্যায় পর্ষদের আইনজীবীর উদ্দেশ্যে বলেন এতদিন ধরে যখন আন্দোলন করছেন আরও একদিন আন্দোলন করলে অসুবিধা কোথায়?

বৃহস্পতিবার মামলার শুনানি পর্ব চলাকালীন বিচারপতিলোপিতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের আইনজীবী উদ্দেশ্যে বলেন ১৪৪ ধারা জারি থাকার পরেও পুলিশ কেন পদক্ষেপ করছেন না পুলিশ কি পাওয়ারলেস হয়ে গিয়েছে। বিধাননগর পুলিশ কমিশনার এবং উত্তর ২৪ পরগনা মুখ্য বিচারকের নির্দেশ দিয়েছিলেন এপিসি ভবনে পর্যাপ্ত পুলিশ মোতায়েন করতে হবে যাতে সেখানে কর্মী এবং চাকরিপ্রার্থীরা প্রবেশ করতে পারেন।

কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশ দেওয়ার পরেই রাত বারোটা নাগাদ সল্টলেক এপিসি ভবনের সামনে আন্দোলনকারীদের কে তুলে দেওয়ার জন্য বিশাল পুলিশবাহিনী পৌঁছে যায় এবং তাদেরকে জোর করে সেখান থেকে তুলে যাওয়ার চেষ্টা করে বলে অভিযোগ। গতকাল রাতেই অমিত মজুমদার,শুভঙ্কর ঘোষ
সান্তনু দেবনাথ এই তিনজন মামালকারিদের অভিযোগ তাদের সাংবিধানিক অধিকার প্রয়োগ করতে দেওয়া হচ্ছে না। এ মর্মে মামলা দায়ের হলো কলকাতা হাইকোর্টে।

প্রাথমিক পর্ষদের আবেদনের মামলার ভিত্তিতে গতকাল কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি লপিতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশ নামা কে চ্যালেঞ্জ করে ও গতকাল রাতের পুলিশি নির্যাতন অভিযোগে ভিত্তিতে আজ কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ চাকরি প্রার্থীরা। মামালকারিদের অভিযোগ তাদের সাংবিধানিক অধিকার প্রয়োগ করতে দেওয়া হচ্ছে না। এ মর্মে মামলা দায়ের হলো কলকাতা হাইকোর্টে। আগামী ২৮ অক্টোবর এই মামলার শুনানির সম্ভাবনা।