Date : 2022-12-06

নিয়োগে কোন বাধা নেই, তবে তাদের ভবিষ্যৎ নির্ভর করবে শীর্ষ আদালতের চূড়ান্ত রায়ে

ষষ্ঠী চট্টোপাধ্যায়, সাংবাদিক : প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিকে চ্যালেঞ্জ করে মামলা হয়েছিল কলকাতা হাই কোর্টে। সোমবার মামলা খারিজ হয়ে গেল আদালতে। হাই কোর্ট জানিয়েছে, আগামী ২১ অক্টোবর থেকে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করতে পারবে পর্ষদ। নিয়োগ প্রক্রিয়া চালাতে পারবে তারা। তবে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের উপরেই তাদের চাকরির ভবিষ্যৎ নির্ভর করবে।

সোমবার পূজা অবকাশকালীন বেঞ্চের বিচারপতি তীর্থঙ্কর ঘোষ তার নির্দেশ নামায় জানান বিএড প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত প্রাথমিক শিক্ষক পদের জন্য আবেদন জানাতে পারবে কিনা তা নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে মামলা চলছে। শীর্ষ আদালতের রায়ের উপরই এই মামলার ভবিষ্যত নির্ভর করছে। বলেন, “সুপ্রিম কোর্টের মামলার ফলাফলের ওপর নির্ভর করবে প্রাথমিক নিয়োগ প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করা বিএড যোগ্যতাসম্পন্ন প্রার্থীদের ভাগ্য।” তবে পর্ষদ কর্তৃপক্ষ এধরনের সংশোধনী প্রকাশ করতে পারবে কিনা, তা জেনে আসার নির্দেশ দেন পর্ষদের আইনজীবীকে। পরে শুনানি চলাকালীন বিচারপতি তীর্থঙ্কর ঘোষের প্রশ্ন, শুধু মামলার পর মামলা হচ্ছে, চাকরি হচ্ছে কোথায়? মামলার পর মামলা হচ্ছে, নিয়োগ হচ্ছে না। পরে হাই কোর্ট জানায়, আগামী ২১ অক্টোবর থেকে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করতে পারবে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ। নিয়োগ প্রক্রিয়া চালিয়ে যেতে পারবে।
সম্প্রতি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি জারি করে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ। সেই বিজ্ঞপ্তিকে চ্যালেঞ্জ জানিয়েই দায়ের হয়েছিল জোড়া মামলা। বিএড ডিগ্রি রয়েছে যাঁদের তাঁরা মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষকতার পদের জন্য আবেদন করতে পারেন। ডিএলএড করেছেন যাঁরা, তাঁরা আবেদন করতে পারেন শধুমাত্র প্রাথমিক শিক্ষক পদের জন্য। ডিএড করেছেন এমন চাকরি প্রার্থীরা এই মামলা করেছিলেন। তাঁদের বক্তব্য ছিল, বিএড প্রশিক্ষণপ্রাপ্তরা এই পদে আবেদন করলে ডিএড প্রশিক্ষণপ্রাপ্তদের সুযোগ কমে যাবে। আবেদন ছিল, বিএড প্রশিক্ষণপ্রাপ্তরা যেন প্রাথমিক শিক্ষক পদের জন্য পরীক্ষা দিতে না পারে।