Date : 2022-12-03

“কে বড় হনু, আমি না মানুষ !” দলীয় কর্মিদের সতর্ক করে কৃষ্ণনগরের সভা থেকে কড়া বার্তা তৃণমূল নেত্রীর।

সঞ্জু সুর, সাংবাদিক : গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে দীর্ণ জেলায় দাঁড়িয়ে দলকে এক হয়ে চলার বার্তা দিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নেত্রীর কথায়, “নিজেদের মধ্যে ঝগড়াঝাঁটি করলে দল থেকে বাদ দিয়ে দেবো।”

তিনদিনের জেলা সফরে এই মুহূর্তে কৃষ্ণনগরে রয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বুধবার কৃষ্ণনগর কলেজ মাঠে ছিল তাঁর দলীয় কর্মীসভা। পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে দীর্ণ এই জেলায় দলকে কি বার্তা দেন তৃণমূল সুপ্রিয় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, সেদিকেই নজর ছিল তৃণমূল জেলা নেতাদের। দেখা গেল দলনেত্রীও এই বিষয়টি নিয়ে যথেষ্ট ওয়াকিবহাল। তাই তিনি সভা মঞ্চ থেকে বললেন, “আমাদের যারা এমএলএ-রা আছেন, আশা করি কেউ নিজেদের মধ্যে ঝগড়াঝাঁটি করবেন না। যে যে ঝগড়াঝাঁটি করবেন তাকে আমি পার্টিতে কোনো স্থান দেব না।” পঞ্চায়েত থেকে শুরু করে জেলাপরিষদ, পুরসভা পর্যন্ত যেসব জনপ্রতিনিধিরা আছেন তাদের উদ্দেশ্যেও কড়া বার্তা দিয়ে তৃণমূল সুপ্রিমো বলেন, “কে বড় হনু! আমি না মানুষ! মানুষ না থাকলে আমি জিরো, মনে রাখবেন সিম্বল না থাকলে আমি জিরো।” স্পষ্ট হুঁশিয়ারি দিয়ে তিনি জানিয়ে দিলেন,”যার ইগো থাকবে, বাড়িতে বসে যান। তার কাজ করবার দরকার নেই।”

দলকে একজোট হয়ে চলার বার্তা দেওয়ার পাশাপাশি দল যাতে একজোট হয়ে চলে সেই কারণে একটি কো-অর্ডিনেশন কমিটিও তৈরি করে দিলেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সংসদ মহুয়া মৈত্র সহ জেলার সব তৃণমূল বিধায়ক ও জেলা পরিষদের সভাপতিদের নিয়ে গঠিত এই কমিটির প্রতিও আলাদা করে বার্তা দিয়েছেন নেত্রী। তাঁর কথায়, “যখন যে ব্লকে যাবেন তখন সেই ব্লকের সবাইকে ডেকে নেবেন। এটা নয় যে ও আমার গ্রুপ বা ও ওর গ্রুপ। মনে রাখবেন এটা তৃণমূল কংগ্রেসের পরিবার, এটাকে ভাঙ্গা যাবে না।” নিজের লড়াইয়ের কথা স্মরণ করিয়ে তিনি বলেন, “আমাকে ভয় টয় দেখিয়ে লাভ নেই। আমি সারা জীবন লড়াই করে এসেছি। আজ আমাকে আরো বেশি লড়তে হচ্ছে। এই লড়াই আমি চালিয়ে যাব, এ লড়াই থেকে আমি সরছি না‌।” দলে নতুন-পুরানো দ্বন্দ্ব মেটাতে তাঁর বার্তা “যাওয়ার আগে আমি নতুনকে তৈরি করে দিয়ে যাব, পুরাতনকে মিশিয়ে দিয়ে যাব। একসাথে কাজ করে তৃণমূল কংগ্রেসকে এক ঐক্যবদ্ধ, সুন্দর, শান্ত পরিবার করে দিয়ে যাব।”