Date : 2022-12-06

মেধাবী ছাত্রের রহস্য মৃত্যুর ঘটনায় পুলিশ সুপারের রিপোর্ট তলব করলো হাইকোর্ট।

ষষ্ঠী চট্টোপাধ্যায়, সাংবাদিক:-বৃহস্পতিবার বিচারপতি রাজা শেখর মান্থার এজলাসে মামলার শুনানি পর্বে অসমের বাসিন্দা মৃত ফাইজ়ান আহমেদের পরিবারের পক্ষের আইনজীবী রণজিৎ চ্যাটার্জি জানান পুলিশ কোন সহযোগিতা করছে না।তদন্তকারী আধিকারিক যাঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করছে না।এদিন বিচারপতি মান্থা নির্দেশ দেন সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী রেগিং নিয়ে পুলিশ ব্যবস্থা নেবেন।পাশাপাশি ছাত্রের ফরেন্সিক ল্যাবরেটরি ভিসেরা পরীক্ষা করতে হবে।এবং পুলিশ সুপার কি কি পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে তাঁর রিপোর্ট আদালতে পেশের পাশাপাশি তদন্তকারী অধিকারীক(আই ও) সশরীরে হাজিরা দিতে হবে।

মামলার বয়ান অনুযায়ী চলতি বছরের ১৪ই অক্টোবর হস্টেলের ঘর থেকে উদ্ধার হয় অসমের বাসিন্দা ফাইজ়ান আহমেদের। ফাইজানের বাবা সেলিম আহমেদের দাবি, তাঁর ছেলে আত্মহত্যা করেননি। তাঁকে খুন করা হয়েছে। সেই সঙ্গে ছেলের ডিএনএ পরীক্ষারও দাবি তুলে ছিলেন তিনি। মর্গের সামনে দেহ দেখার পরেই বেরিয়ে এসে সেলিমকে চিত্‍কার করে বলতে শোনা গিয়েছিল, ”আমার ছেলেকে মেরে ফেলা হয়েছে।

ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে চিঠি লিখেছিলেন অসমের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত বিশ্বশর্মা। তিনি বিষয়টিকে কোনভাবেই সহজ করে নিতে রাজি ছিলেন না। মমতাকে চিঠি লিখে অসমীয়া ছাত্রের মৃত্যুর ঘটনায় সঠিক তদন্তের আবেদন জানান হেমন্ত।
কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি রাজশেখর মান্থার এজলাসে ফৈজানের বাবা মায়ের দায়ের করা মামলায় বলা হয়েছে, তাঁদের সন্তানকে খুন করা হয়েছে। ঘটনার তদন্তভার পুলিশের কাছ থেকে সরিয়ে সিবিআই কিংবা সিআইডি’কে দেওয়া হোক। বিচারপতি মান্থা আগামী বৃহস্পতিবার মামলার শুনানি করবেন।