Date : 2024-07-24

কেন্দ্র ও রাজ্য এই দুই সরকারের লুট রুখতে কর্মসূচি সিপিআই(এম)’র

শাহিনা ইয়াসমিন, সাংবাদিক:- দু’দিনের রাজ্য কমিটির বৈঠকের পর বুধবার আলিমুদ্দিন এ সাংবাদিক সম্মেলনে করেন সিপিআই(এম) রাজ্য সম্পাদক মহম্মদ সেলিম। রাজনীতির দুর্নীতিকরণের অন্যতম সূচক যে নির্বিচারে দল বদল, স্পষ্ট ভাষায় বললেন মহম্মদ সেলিম। তিনি বলেন, আদানিদের নিয়ে চলছে দু’দলই।তৃণমূল আর বিজেপি, এক দল ছেড়ে অন্য দলে যোগ দিলে কেউ ব্যবস্থা নেয় না। বিধানসভা ও সংসদে একই ছবি। দুই দলই হাত ধরাধরি করে চলছে।
দুই দলই পুঁজিবাদীদের পৃষ্ঠপোষক। আদানিকাণ্ডতেও তা ধরা পড়ছে। দুই শক্তির বিরুদ্ধেই লড়াই করছে সিপিআই(এম) এবং বামপন্থীরা। সেই লড়াই তীব্রতা আরও বাড়বে। সরকারি দপ্তরের জমি, জঙ্গলের জমি, পাহাড় থেকে সাগর বেসরকারিকরন করা হচ্ছে। পরিবেশ, নদী, জল, জঙ্গল লুটে একই ভূমিকা নিচ্ছে কেন্দ্রের বিজেপি এবং রাজ্যের তৃণমূল সরকার।জনতার সম্পদ লুঠ রুখতে আন্দোলনের পথে নামবে সিপিআই(এম)। সেলিম বলেন, রাজ্যপালের ভাষণে প্রতিবাদের নামে রাজ্য বিধানসভায় নাটক হচ্ছে।
দু’দিনের রাজ্য কমিটির বৈঠকে আলোচনার পর কর্মসূচি জানিয়েছেন মহাম্মদ সেলিম। ত্রিপুরার প্রতি সংহতি জানিয়ে ১৩ ফেব্রুয়ারি রাজ্য জুড়ে ত্রিপুরা সংহতি দিবস পালন করা হবে রাজ্য জুড়ে। তিনি বলেন ত্রিপুরায় বিজেপি গত পাঁচ বছর ধরে যেই অপশাসন চালিয়েছে, যেই অপকর্ম করেছে তা রাজ্যের মানুষের কাছে আমরা সেদিন তুলে ধরা হবে। ১৪ ফেব্রুয়ারি আইএসএফ বিধায়ক নওসাদ সিদ্দিকী সহ বাকি বন্দিদের মুক্তির দাবিতে যেই মিছিল হবে। সেই মিছিলে বিজেপি তৃণমূল বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলিকে যুক্ত হওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে।
১৭ ফেব্রুয়ারি সারা ভারত খেত মজুর ইউনিয়নের সর্বভারতীয় সম্মেলন উপলক্ষে হাওড়ায় সমাবেশের ডাক দেওয়া হয়েছে। সেই সমাবেশের প্রধান বক্তা হিসাবে থাকবেন কেরালার মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন। এই সমাবেশের জন্যে পুলিশ এখন কোন অনুমতি দেয়নি। বাইরের রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী আসবেন তার জন্য কোন ব্যবস্থা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এখনও করা হয়নি। তবে প্রশাসন অনুমতি না দিলেও সমাবেশ হবে। যেই জায়গায় হওয়ার কথা সেখানেই হবে। ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক ভাষা দিবস পালন করা হয় সিপিআই(এম)’র পক্ষ থেকে। এবছরও তা হবে বলে জানিয়েছেন সিপিআই(এম)’র রাজ্য সম্পাদক। কমিউনিস্ট ম্যানিফেস্টোর ১৭৫ তম বর্ষ উপলক্ষে ‘মাতৃভাষায় মার্কসবাদ চর্চা’ শীর্ষক আলোচনা সভা হবে।