Date : 2024-04-19

তরুণ যুবকের রহস্য মৃত্যুর তদন্ত করবে সিবিআই। নির্দেশ কলকাতা হাই কোর্টের।

ষষ্ঠী চট্টোপাধ্যায়,সাংবাদিক : রাজারহাট থানা এলাকায় মাটি বিবাদ কে কেন্দ্র করে বছর তিরিশের এক যুবকের রহস্য মৃত্যুর ঘটনায় সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিলেন বিচারপতি রাজা শেখর মানথা ।

মামলার বয়ান অনুযায়ী ২০২১ সালের ২৯শে মার্চ জিয়াউর রহমান নামে এক ব্যাক্তির জমিতে মাটি সরানোর কাজে যায় ওয়াকিল আহমেদ। অভিযোগ জেসিবি দিয়ে মাটি সরানোর কাজ শুরু করার পর সেখানে দুষ্কৃতী দল চড়াও হয়ে ওয়াকিল আহমেদকে শাসানি দেয়। তার জেসিবি ভেঙে গুড়িয়ে দেওয়া হয়। তাকে ওই জমিতে কাজ করা যাবে না বলে হুমকি দেয়া হয়। অভিযোগের পর শাসানি চলছিল। এমনকি ওই এলাকার উপ প্রধান দলবল নিয়ে তোলার টাকা চায় ওয়াকিল আহমেদএর কাছ থেকে। পুলিশে অভিযোগ জানিয়েও কোনো সুরাহা হয়নি। টাকা না দেওয়ায় একাধিক বার হুমকি দেওয়া হয়। এই ঘটনার এক সপ্তাহ পর ১৪ই এপ্রিল ওয়াকিল আহমেদএর মৃতদেহ উদ্ধার হয়।
এর পর রাজারহাট থানার পুলিশ তদন্তে নামে।মৃতদেহের ময়না তদন্ত হয়। ভিসেরা সংগ্রহ করা হয়।
কিন্তু পরে পুলিশ রিপোর্ট দিয়ে জানায় দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে।
এর মধ্যেই ছেলের মৃত্যুর তদন্তের দাবিতে হাই কোর্টের দারস্থ হন ওয়াকিল আহমেদএর বাবা ইমন আলী মোল্লা। অভিযোগের প্রেক্ষিতে বিচারপতি রাজা শেখর মান্থা
বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক অজয় কুমার গুপ্ত এবং একজন অবসপ্রাপ্ত ফরেনসিক এক্সপার্ট কে ময়না তদন্তের রিপোর্ট যাচাই করতে বলে।
কিন্তু অভিযোগ পুলিশ তাদের কোনো সহযোগিতা করেনি। কেস ডাইরি দেওয়া হয়নি। এবং এই মামলার সঙ্গে সম্পর্ক যুক্ত তথ্য দিয়েও সাহায্য করা হয়নি।
পরে অজয় কুমার গুপ্ত যে রিপোর্ট দেয় তাতে স্পষ্ট হয় যায় এটা কোনো ভাবেই দুর্ঘটনায় মৃত্যু নয়। অজয় কুমার গুপ্ত রিপোর্টে স্পষ্ট উল্লেখ করেন মাথায় ভারী কিছু দিয়ে আঘাত করার ফলে মৃত্যু হয়েছে।

বিচারপতির নির্দেশএখানে স্পষ্ট হয়েছে এবং আদালত মনে করছে এর আগেও বিধান নগর পুলিশ কমিশনারেট একাধিক এমন ঘটনা ঘটেছে। মাটি মাফিয়া দের দৌরাত্ম্য চলছে। এক্ষেত্রে মামলকারীর সঙ্গে রাজনৈতিক বিবাদ ছিল সে স্পষ্ট। কিন্তু সেটা তদন্তে কখনও তা বিচার্য হয়নি। তাই এই মামলায় সিবিআই কে তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে। রাজারহাট থানাকে অবিলম্বে সমস্ত ফাইল সিবিআইকে হস্তান্তর করতে হবে। অবিলম্বে তদন্ত শুরু করবে সিবিআই। ৪ঠা এপ্রিল মামলার পরবর্তী শুনানি। ওই দিন প্রাথমিক রিপোর্ট জমা দিতে হবে সিবিআইকে।