Date : 2024-07-22

বিধায়ক নওশাদ সিদ্দিকীর মুক্তির দাবিতে মিছিল বামফ্রন্ট ও আইএসএফ কর্মী- সমর্থকদের।

শাহিনা ইয়াসমিন, সাংবাদিক:- রাজ্যের একমাত্র বিরোধী বিধায়কের মুক্তির দাবিতে মিছিলের ডাক দিয়েছিল বামফ্রন্ট। মিছিল হয়েছিল রামলীলা ময়দান থেকে রানি রাসমণি রোড পর্যন্ত। এই মিছিলে অংশ নিয়েছিল আইএসএফ সমর্থক এবং কর্মীরাও। মঙ্গলবার মিছিলে নেতৃত্ব দিয়েছেন বামফ্রন্টের চেয়ারম্যান বিমান বসু, আরএসপি’র সাধারণ সম্পাদক মনোজ ভট্টাচার্য, উপস্থিত ছিলেন মোহাম্মদ সেলিম সহ প্রমুখ।

নওাসাদ সিদ্দিকী জেলে কেন, মিছিলে উঠেছে স্লোগান। এই মিছিলের এক মাত্র উদ্দেশ্য ছিল বিধায়ক নওশাদ সিদ্দিকীর মুক্তির দাবি। শুধু নওশাদ সিদ্দিকী নয়, নওশাদ সিদ্দিকী সহ সমস্ত রাজনৈতিক বন্দীদের অবিলম্বে মুক্তির দাবিতে এই বিক্ষোভ মিছিল। মিছিলে থাকা স্লোগানে, প্ল্যাকার্ডে, ব্যানারে ফুটে উঠেছে জবাব। বিধানসভায় তৃণমূল এবং বিজেপি’র বিরোধী একমাত্র স্বর দাবিয়ে দেওয়ার চেষ্টা হচ্ছে বলে দাবি তোলেন তারা।

বিধানসভায় মুখ্যমন্ত্রী নিজে বিজেপি’র বিধায়ক, বিরোধী দলনেতাকে, আড়াল করছেন। ২১ জানুয়ারি ভাঙড়ের হাতিশালায় হামলা হয়েছিল নওশাদ সিদ্দিকীর ওপর। আইএসএফ সমর্থকদের ওপর। দায়ী তৃণমূল নেতা আরাবুল ইসলাম, তারা বুক ফুলিয়ে যাকে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। আর নিজের দলের কর্মসূচিতে যোগ দিতে গিয়ে আক্রান্ত বিধায়ক জেলে। ধর্মতলায় মিছিলের সময়ে গ্রেপ্তার হয়েছেন। তাই ইনসাফের দাবিতেই এই মিছিলের আয়োজন করা হয়। এই মিছিল হয়েছে নাগরিক অধিকারের সুরক্ষার দাবিতেও- বলেছে বামফ্রন্ট। বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু বলেন – এই মিছিল রাজ্যের প্রত্যেক মানুষের। যারা দুর্নীতি-দুষ্কৃতী রাজের বিপক্ষে, যারা সাম্প্রদায়িকতার বিপক্ষে। এবং এই মিছিল হল যারা গণতন্ত্রের পক্ষে, নাগরিক অধিকারের পক্ষে। আসলে মানুষের সম্পদ লুট হচ্ছে। লুট করছে দুই দলই, বিজেপি আর তৃণমূল।