Date : 2024-07-12

“এ যেন মামার বাড়ির আবদার”! নদী থেকে অবৈধভাবে বালি তুলতে দিতে হবে এস ইউ সি আই এবং সিপিআইএম সমর্থকদের।

ষষ্ঠী চট্টোপাধ্যায়, সাংবাদিক : দীর্ঘদিন ধরে বজবজ ২ নম্বর পঞ্চায়েত সমিতির অন্তর্গত রায়পুর ও গোদা খালি অঞ্চলে নদী থেকে বালির ব্যবসা বন্ধ থাকায় মাঝিরা অনাহারে দিন কাটাচ্ছে এমনি অভিযোগ স্থানীয় সিপিম নেতাদের । বজ বজ ২ নম্বর ব্লক এর সহ সভাপতি সুব্রত ব্যানার্জি র বক্ত্যব্য বেআইনি বালি চুরি করার পারমিশন সে কি ভাবে দেবেন। তিনি জানিয়েছেন যেখানে কেন্দ্রীয় সরকার নির্দেশ অনুযায়ী নদী থেকে কোন অবৈধভাবে বালি তোলা যাবে না। এই কারণেই তার এলাকায় গঙ্গা থেকে বালি তোলা তিনি বন্ধ করে দিয়েছেন।

এসব জানা সত্ত্বেও অযথা স্থানীয় সিপিএম এবংএস ইউ সি আই বেশ কিছু সমর্থকরা বেআইনি কাজ করবার অনুমতি চাইছেন।তাই বৃহস্পতিবার এস ইউ সি আই I এবং সিপিএম এর পক্ষ থেকে ও অঞ্চলে বসবাসকারী মাঝিরা আজ বজ বজ ২ নম্বর পঞ্চায়েত সমিতির সহকারী সভাপতি সুব্রত ব্যানার্জির কাছে অবৈধ বালি তোলার জন্য ডেপুটেশন জমা দেন ।

কারণ এর আগে নোদাখালি থানা, ডায়মন্ডহারবার সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এবং বজ বজ 2 নম্বর বিডিও কে ডেপুটেশন দেওয়ায় কোন কাজ হয়নি। তাই তারা অবশেষে বজ বজ ২ নম্বর পঞ্চায়েত এলাকার সহ সভাপতি সুব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে ডেপুটেশন জমা দেন।

সুব্রত বাবু তাদের ডেপুটেশন গ্রহণ করে, কিন্তু সুব্রত বাবুর বক্তব্য অবৈধ কাজের সঙ্গে তিনি কোনো রকম ভাবে আপোষ করতে পারবেন না অবৈধ কাজ জানা সত্ত্বেও এসইউসিআই এবং সিপিএমের মতো একটি দল এই অবৈধ কেন কাজের অনুমতি চাইছে তিনি বুঝে উঠতে পারছেন না। পাশাপাশি এসইউসিআই এবং সিপিএমের নেতাদের বক্তব্য যদি এই অবৈধ বালি তোলার পারমিশন না দেওয়া হয় প্রশাসন থেকে তাহলে তারা বৃহত্তর আন্দোলনে যাবে। স্থানীয় সিপিআইএম এবং এস ইউ সি আইয়ের নেতাদের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে।