Date : 2024-04-13

হরেক গুণাবলীতে সজনে

সঞ্জনা লাহিড়ী, সাংবাদিক- গ্রীষ্মের সবজি হিসেবে পরিচিত হলেও বসন্ত থেকেই কম বেশি sob বাড়িতে শুরু হয়ে যায় সজনে ডাঁটা খাওয়া। মাছের ঝোল থেকে ডাল, সব জায়গা গ্রহণ করে নেয় সজনে ডাঁটা। শুধু সজনে ডাঁটা না সজনে পাতার গুণাবলীও অসীম। সজনে পাতা যেমন কাঁচা খাওয়া যায় তেমনই শাক হিসেবেও খাওয়া হয়। জেনে নেওয়া যাক সজনের বিভিন্ন গুণ সম্পর্কে।
১) সজনে ডাঁটায় রয়েছে ভিটামিন ‘সি’ যা অ্যান্টি অক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে। ঠান্ডা লেগে জ্বর, সর্দি, কাশি হলে সজনে ডাঁটার তরকারি বা স্যুপ খেলে রোগীর উপশম হয়।
২) হাই ব্লাড প্রেশারের রোগীদের জন্য সজনে ডাঁটা বেশ উপকারী। এটি কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে রাখতেও সহায়তা করে। সজনে ডাঁটা ও পাতা, দুই-ই উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে।
৩) হজমের সমস্যা সমাধানেও সজনে সিদ্ধহস্ত। যাদের পেটের সমস্যা, বদহজম হয় তারা যদি সজনের তরকারি খায় তাহলে উপকার মিলবে।
৪) মধুমেহ রোগীদের জন্যেও সজনে বেশ উপকারী। শরীরে চিনির মাত্রাকে নিয়ন্ত্রণে রাখে সজনে।
৫) সজনে ডাঁটায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণ আয়রন, ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন। এটি হাড়ের গঠনে সাহায্য করে। শরীরের রক্ত বিশুদ্ধ করতেও সজনে ডাঁটা সাহায্য করে।
৬) বসন্তের সবজি সজনে বসন্ত রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে। সজনে ডাঁটার তরকারি বা ডাল রান্না করে খেলে যেকোনও রকমের বসন্ত রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়।
৭) সজনে ডাঁটা একটি আঁশবহুল বা ফাইবার যুক্ত সবজি। তাই এটি খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয়। প্রতিদিন সজনে ডাঁটা খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য সমস্যা সমাধান সম্ভব।
৮) সজনে ডাঁটা ও পাতা, উভয়ই শ্বাসকষ্ট নিরাময় করতে সাহায্য করে। সজনে ডাঁটায় রয়েছে অ্যান্টি- অক্সিডেন্ট যা অ্যালার্জি নির্মূল করে। ফলে অ্যালার্জির জন্য অনেকেরই শ্বাসকষ্ট হয় তা দূর করে সহজেই।
৯) সজনে পাতায় যে পরিমাণ ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম রয়েছে তা দুধের থেকেও বেশি। এই পাতা শাক হিসেবে খাওয়া ভাল। এটি শরীরের ব্যথা ও ক্লান্তি দূর করে।
১০) বিভিন্ন রকমের রোগের জন্য অনেকেরই মুখের রুচি চলে যায়। এই রকম হলে সজনে পাতা ভেজে বা ভর্তা করে খেলে রুচি ফিরে আসে। শরীরে শক্তিরও সঞ্চয় হয়।
এ ছাড়া সজনে ডাঁটা লিভার ও কিডনি সুরক্ষিত করে। শরীরের মেদ কমাতে সাহায্য করে। তাই সজনের মরসুমে এই সবজি খাওয়া একান্ত প্রয়োজন।