Date : 2024-05-24

গরমে বেড়েছে মাটির পাত্র কেনার হিড়িক

শাহিনা ইয়াসমিন, সাংবাদিক:- বেলা বাড়তেই বাড়ছে তাপমাত্রার পরিমাণ। সূর্যের তেজ এতটাই বাড়েছে যে একটানা কাজ করা প্রায় অসম্ভব হয়ে উঠেছে। আর তাই ঘনঘন পান করতে হচ্ছে জল। চিকিৎসকরাও তাই বলছেন, গরমে বেশি করে জল পান করতে। গরমকাল মানেই শরীরে বাড়ে জলের চাহিদা। এই গরমে নরমাল জল মুখে দেওয়া যাচ্ছে না। ফ্রিজে অনেকেই জল রেখে খাচ্ছেন। কিন্তু ফ্রিজে জল খেতে বারণ করছেন ডাক্তারবাবুরা। জল খেতে ব্যবহার করি প্লাস্টিকের বোতল। প্লাস্টিকের পাত্রে জল না খাওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা। তাই ইদানিং স্বাস্থ্য সচেতন মানুষের মধ্যে নিত্য প্রয়োজনীয় পছন্দের তালিকায় জায়গা করে নিয়েছে মাটির জলের পাত্র। মাটির জলের পাত্র বা কলসি আগে একটা সময় খুব চল ছিল। গ্রামে শহরে দেখা যেত। তবে সময়ের সাথে তাল মেলাতে গিয়ে মাটির কলসি হারিয়ে গিয়েছিল।

শুধু মাটির কলসি নয়, মাটির রান্নার পাত্র, মাটির বাসন, গ্লাস। কলকাতাবাসী পুরোনো ছন্দে ফিরছে। মাটির পাত্রের ওপরই ঝোঁক বাড়তেই মাটির জগ, বোতল সহ নানা জলের পাত্রের চাহিদা এখন তুঙ্গে। আর এই মাটির পাত্রের চাহিদার যোগান দিচ্ছে দত্তপুকুর, নদীয়া, মধ্যমগ্রাম, পূর্ব মেদিনীপুর থেকে আসা মাটির পাত্র। শুধু প্লেন বোতল নয়, রয়েছে নকশা করা বোতল, জগ, মাটির কুঁজো।মাটির জলের পাত্রের ওপর পটশিল্পের কারুকার্য মানুষের মনে ধরেছে। তাই চাহিদাও তুঙ্গে। ক্রেতার সংখ্যা এবছর রেকর্ড ভেঙেছে বলছেন মাটির পাত্র বিক্রেতারা। দাম শুরু ১০০ টাকা থেকে। ছোটো বোতল বা জগ এর দাম ৫০ টাকা থেকে। ফ্রিজ কে টেক্কা দিতে মাটির কলসি, বোতলের রমরমা বাড়ছে। কাঁকুরগাছিতে এলে দেখতে পাবেন সারি দিয়ে বেশ কয়েকটি মাটির পাত্র পসরা সাজিয়ে বিক্রেতারা।