Date : 2024-05-25

সরকারি গ্রন্থাগারগুলোতে কোন সংবাদপত্র রাখা হবে সিদ্ধান্ত স্থানীয় গ্রন্থাগারই নিতে পারবে নির্দেশ হাইকোর্টের

ষষ্ঠী চট্টোপাধ্যায়, সাংবাদিক : রাজ্যের সরকারি গ্রান্থাগার গুলো থেকে রাজনৈতিক মুখপত্র বাতিল করার বিরুদ্ধে মামলা।
কোন সংবাদপত্র রাখা হবে তা রাজ্যের গ্রান্থাগার আইন অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট এলাকার গ্রান্থাগার সিদ্ধান্ত গ্রহন করতে পারবে বলে নির্দেশ বিচারপতি টিএস শিবজ্ঞানমের ডিভিশন বেঞ্চের।স্থানীয় মানুষের চাহিদা অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নেবে লোকাল লাইব্রেরি বলে উল্লেখ বিচারপতির।

বর্তমান শাসক দল রাজ্যে ক্ষমতায় আসার কিছুদিন পর ১৪ মার্চ ২০১২ এ একটা বিজ্ঞপ্তিতে জানায় রাজ্যের লাইব্রেরিগুলিতে মাত্র ৮ টা সংবাদপত্র রাখার অনুমতি দেওয়া হবে । এই বিজ্ঞপ্তির ফলে বাদ পড়েছিল গনশক্তির মত বাম মুখপত্র। তারপরই এই বিজ্ঞপ্তির বিরুদ্ধে হাইকোর্টে তিনটি মামলা দায়ের হয়েছিল।

এদিন শুনানিতে সুপ্রিমকোর্টের একটা রায় উল্লেখ করে মামলাকারী জানান, জনগণের টাকা খরচ করে সংবাদপত্র কেনা হচ্ছে। সেখানে আইনত কোনো বিধিনিষেধ রাখা যায় না।

রাজ্যের এডভোকেট জেনারেল সৌমেন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায় জানান, ৭ নভেম্বর ২০১৯ ও
৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১ নতুন বিজ্ঞপ্তি জারি করে ১৪ টা সংবাদপত্র কেনার কথা জানানো হয়।এতে উর্দু এবং নেপালি ভাষার সংবাদপত্র পর্যন্ত আছে।

সরকারি অর্থ ব্যয় করে কোনো রাজনৈতিক মুখপত্র রাখা যায় না রাজ্যের এই বক্তব্যে প্রত্তুত্তরে বিচারপতি শিবাজ্ঞনাম বলেন, “স্থানীয় মানুষের চাহিদা
গুরুত্বপূর্ণ। সেদিকে বিবেচনা করেই স্থানীয় লাইব্রেরির সিদ্ধান্ত গ্রহন করা উচিত।

শেষে নির্দেশে ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি টিএস শিবজ্ঞানম ও বিচারপতি হিরন্ময় ভট্রাচার্যর ডিভিশন বেঞ্চ জানায়, কোন সংবাদপত্র রাখা হবে তা রাজ্যের লাইব্রেরি আইন অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট এলাকার লাইব্রেরি সিদ্ধান্ত গ্রহন করতে পারবে । এর আগে একাধিক প্রধান বিচারপতি এই মামলার শুনানি করেছেন।কিন্তু মামলার নিস্পত্তি হয়নি।শেষে নতুন ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি দায়িত্ব নেওয়ার পর প্রথম দিনেই মামলার নিস্পত্তি করলেন।