Date : 2024-05-21

লিঙ্গ ভেদে বেতন বৈষম্য ! স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান দফতরের বিজ্ঞপ্তিতে বিতর্ক।

সঞ্জু সুর, সাংবাদিক : পশ্চিমবঙ্গ সরকারের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ দফতরের সাম্প্রতিক একটি বিজ্ঞপ্তি নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। যে বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী সমকাজে নারী ও পুরুষ কর্মীর সাম্মানিক বেতনে চূড়ান্ত বৈষম্য রয়েছে বলে অভিযোগ। সরকারি বিজ্ঞপ্তি পরিবর্তনের আর্জি জানিয়ে দফতরে চিঠি দিল ওয়েস্ট বেঙ্গল কাউন্সিল অফ যোগা এন্ড ন্যাচারোপ্যাথি।

গত ৩১ মার্চ রাজ্য স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ দফতরের অধীন আয়ুষ বিভাগের পক্ষ থেকে একটি সরকারি বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়। যার মেমো নাম্বার হলো 108/HF/AYUSH/Samity-01/2022 । বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী রাজ্যের প্রতিটি জেলায় অস্থায়ী ও চুক্তিভিত্তিক যোগা ইন্সট্রাক্টর নিয়োগ করা হবে বলে জানানো হয়েছে। এই ইন্সট্রাক্টর নিয়োগের জন্য ৫০ নম্বরের পরীক্ষা নেওয়া হবে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে। অস্থায়ী ও চুক্তিভিত্তিক এই যোগা ইন্সট্রাক্টরদের নিয়োগের জন্য জেলাশাসককে চেয়ারম্যান করে পাঁচ সদস্যের একটি নিয়োগ কমিটিও গঠনের কথা বলা হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে। এ পর্যন্ত সবই ঠিকঠাক ছিল। কিন্তু এইসব যোগা ইন্সট্রাক্টরদের সাম্মানিক বেতনের জায়গায় যা লেখা আছে তা দেখে চক্ষু চরক গাছ অনেকের।

বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী পুরুষ যোগা ইন্সট্রাক্টরদের সান্মানিক বেতন প্রতি মাসে আট হাজার(৮,০০০) টাকা এবং মহিলা যোগা ইনস্ট্রাকটারদের সান্মানিক বেতন প্রতি মাসে পাঁচ হাজার(৫,০০০) টাকা। যে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী একজন মহিলা সেই রাজ্যে যোগা ইন্সট্রাক্টর নিয়োগের ক্ষেত্রে পুরুষ ও মহিলা ভেদে এত বেতন বৈষম্য কেন হবে ! যা নিয়ে ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে বিতর্ক।

ওয়েস্ট বেঙ্গল কাউন্সিল অফ যোগা এন্ড ন্যাচারোপ্যাথি-র পক্ষে রেজিস্ট্রার ডঃ শুভ্র ভট্টাচার্য নিজেদের আপত্তির কথা জানিয়ে চিঠি দিয়েছেন স্বাস্থ্য পরিবার কল্যাণ দফতরের সচিব কে। চিঠিতে তিনি লিখেছেন এই বৈষম্য দূর করা হোক। পুরুষ ও মহিলা উভয় ক্ষেত্রেই সমপরিমাণে সান্মানিক ধার্য করা হোক বলে আর্জি জানিয়েছেন তাঁরা। যদিও স্বাস্থ্য দপ্তরের এক কর্তা জানালেন পুরুষ এবং মহিলাদের ক্ষেত্রে ডিউটি বা কাজের পরিধি অনেকটাই আলাদা। পুরুষ যোগা ইন্সট্রাক্টরদের যেখানে ৩২ টি করে সেশন নেওয়ার কথা বলা হয়েছে, সেখানে মহিলা ইন্সট্রাক্টরদের জন্য মোট সেশনের পরিমাণ কুড়িটি। তাঁর আরো বক্তব্য, সেশন পিছু মহিলা বা পুরুষ উভয়েরই জন্য আড়াইশো টাকা করে ধার্য করা হয়েছে। এখানে বৈষম্যের কোন বিষয় নেই।