Date : 2024-05-27

উপাচার্যদের চিঠি রাজ্যপালের। এই চিঠির বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন শিক্ষামন্ত্রী।

নাজিয়া রহমান, সাংবাদিক : রাজ্যের বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের সাপ্তাহিক রিপোর্ট পাঠাতে হবে রাজভবনে এবং আর্থিক লেনদেন সম্পর্কিত যাবতীয় বিষয়ে আগাম অনুমোদন নিতে হবে আচার্য তথা রাজ্যপালের। চিঠি পাঠিয়ে উপাচার্যদের এমনই নির্দেশ দিয়েছেন সিভি আনন্দ। এই চিঠির বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন শিক্ষামন্ত্রী।

রাজভবন ও শিক্ষা দফতর সমন্নয় রেখে কাজ করবে। মাস খানেক আগে রাজ্যপাল তথা আচার্য সি ভি আনন্দ বোসের সঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী ও উপাচার্যদের বৈঠক শেষে এ কথা বলেন শিক্ষামন্ত্রী বাত্য বসু। কিন্তু রাজভবন থেকে উপাচার্যদের পাঠানো একটি চিঠি নিয়ে শুরু হয়েছে বিতর্ক। চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে, রাজ্যের প্রত্যেক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যরা সাপ্তাহিক রিপোর্ট পাঠাবেন আচার্য তথা রাজ্যপালের কাছে। পাশাপাশি আর্থিক লেনদেন সম্পর্কিত যাবতীয় বিষয়ে আগাম অনুমোদন নিতে হবে আচার্যে। এই চিঠির পরেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে তাহলে কি সমন্নয় সংঘাতের রূপ নিতে শুরু করল। এই চিঠি সমন্নয়ের সুর কাটল। ইতিমধ্যেই এই চিঠির বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু। নির্দেশ প্রত্যাহার করে নেওয়া উচিত বলেও আর্জি জানিয়েছেন তিনি।

প্রাক্তন রাজ্যপাল তথা আচার্য জগদীপ ধনখড়ের সঙ্গে শিক্ষা দফতরের সম্পর্ক খুব একটা মধুর ছিল না। সেই জায়গা থেকে নতুন রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোসের সঙ্গে শিক্ষা দফতর সমন্নয় রেখে কাজ করবে এমনটাই জানিয়েছিলেন শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু। কিন্তু উপাচার্যদের পাঠানো চিঠি সেই ছন্দে যেন তাল কেটেছে। উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে তাই ফের সংঘাতের অশনিসংকেত দেখছেন শিক্ষকমহলের একাংশ।