Date : 2024-02-21

জলই জীবন। তাই এই গরমে জল পান করার পরামর্শ চিকিৎসকূের।

নাজিয়া রহমান, সাংবাদিক : গরমের হাত থেকে শরীরকে বাঁচাতে বেশি করে জল পান করার পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকেরা। তাপমাত্রার পারদ ক্রমশ উর্ধ্বমুখী। এই মূহুর্তে বৃষ্টির কোনও সম্ভাবনা নেই। তাই শরীর সুস্থ রাখতে গেলে জলই একমাত্র ভরসা।

ক্রমশ উর্ধ্ব তাপমাত্রার পারদ। রাজ্যের বেশ কয়েকটি জেলার তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি পার করেছে। চাদিফাটা রোদের হাত থেকে ছাতা যেমন প্রয়োজন। তমনি শরীরকে সচল রাখতে আর এই তীব্র দাবদহের হাত রেহায় দিতে জলই ভরসা। জলই জীবন। এই কথাটা যে ধ্রুব সত্য এই দাবদহের মধ্যে সে কথা হাড়ে হাড়ে বুঝছে বঙ্গবাসী। শহর কলকাতার তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রির আশেপাশে। গরমের হাত থেকে শরীরকে বাঁচাতে জল পান করার পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকেরা। এই গরমে বাইরে বেরিয়ে তেষ্টা মেটাতে লেবুর জল, আখের রস কিংবা পনীয়জলের উপর বিশেষ ভরসা রাখছেন শহরবাসী। শুধুমাত্র মানুষ নয় পশুপাখিও প্রাণ বাঁচাতে পান চুমুক দিচ্ছে পানীয় জলে।

চিকিৎসকদের পরামর্শ শরীরে জলের যোগান দিতে,ঘন ঘন জল পান করতে হবে।যারা বাইরে বেরিয়ে কাজ করছেন,তাদের আরও বেশি সতর্ক থাকার পরামর্শ। শরীরে জলের ঘাটতি হলে ডিহাইড্রেশন, লো প্রেশার, মাথা ঘোরার মত
সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই বেশি করে জল খেতে হবে। দিনে পুরুষরা প্রায় ৪ লিটার
মহিলারা ৩ লিটার জলপান করুন।তেষ্টা না পেলেও জল খেতে হবে। বাচ্চারা যাতে তৃষ্ণা পেলেই জলপান করে, সেদিকে নজর রাখতে হবে। গ্লুকোজ জলের পরিবর্তে ওআরএস, ডাবের জল পান করার পরামর্শ। গ্লুকোজ শরীরের সুগার বাড়িয়ে দিতে পারে বলে মত চিকিৎসকদের।

শুধুমাত্র দক্ষিণবঙ্গ নয় উত্তরবঙ্গের মালদা, ২ দিনাজপুরের তাপমাত্রা ২-৩ ডিগ্রি তাপমাত্রার পারদ বাড়বে বলে পূর্বাভাস আবহাওয়া দফতরের। আবহাওয়াবিদদের মত অনুযায়ী এখনই বৃষ্টির কোনও সম্ভাবনা নেই।