Date : 2024-05-27

ক্রিকেট বাদ দিয়ে বাকি সব বিতর্কেই আছেন লোকেশ রাহুল

ক্রিকেট বাদ দিয়ে বাকি সব বিতর্কেই আছেন লোকেশ রাহুল। এবার নতুন বিতর্ক তাকে ঘিরে দেখা দিল, চোট নিয়েই নাইট ক্লাবে যাওয়া নিয়ে। অতীতে হার্দিক পান্ডিয়ার সঙ্গে এক টিভি শো-তে এসে মহিলাদের নিয়ে মন্তব্য করার জন্য নির্বাসিত হতে হয়েছিল তাঁকে। এরপর দলে সুযোগ পেলেও পারফরমেন্স তার অত্যন্ত খারাপই থেকেছে। তবুও সৌভাগ্যের খাতিরে তিনি দলে থেকে গেছেন। সদ্য লক্ষ্মৌ সুপার জায়ান্টসের হয়ে খেলতে গিয়ে তিনি চোট পান। এরপর ছিটকে যান গোটা আইপিএল থেকে। চোটের জন্য বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালেও খেলা হবে না তার। তবুও বিশ্রাম না নিয়ে তিনি ছুটলেন লন্ডনের এক স্ট্রিপ ক্লাবে, যেখানে লাস্যময়ী নারীরা সর্বদা ব্যস্ত থাকেন মনোরঞ্জনের জন্য। বিদেশের মাটিতে তার ব্যাটিং পারফরমেন্সের যখন এত দুরবস্থা সেখানে বিদেশের নাইট ক্লাবে গিয়ে তার এই হৈহুল্লোর করার ছবি প্রকাশ্যে আসতেই শুরু হয়েছে তিব্র সমালোচনা। স্বাভাবিকভাবেই বিসিসিআইয়ের আওতায় থাকা এক ক্রিকেটার কিভাবে অনুমতি ছাড়া এরকম ক্লাবে যায় সেই নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। কারণ হার্দিক পান্ডিয়া এবং লোকেশ রাহুলের টিভি চ্যানেলে বিতর্কিত মন্তব্যের পর সমস্ত ক্রিকেটারের ওপর নতুন নিয়ম লাগু করা হয়েছিল, তারা যেখানেই যাবেন বোর্ডের অনুমতি নিয়ে যাবেন। কারণ তারা স্রেফ ক্রিকেটার নয়, দেশের মানুষের কাছে আইকন। তাদের দেখেই ছোটোরা বড় হয়, শিক্ষা নেয়। যদিও স্বামি বিতর্কে জড়াতেই আসরে নেমেছে লোকেশ রাহুলের স্ত্রী আথিয়া শেট্টি। তিনি পোস্ট করে জানিয়েছেন , সেই ক্লাবটি মোটেই স্ট্রিপ ক্লাব নয়। অর্থাৎ লাস্যময়ী নারিরা সেখানে বিকিনিতে ডান্স করলেও সেটি বৈধ এক ক্লাব। এবং সেখানে সাধারন মানুষের মতো তারা গেছিলেন, নতুন কিছুই নয়। 2023 সালের জানুয়ারি মাসেই চার হাত এক হয় আথিয়া এবং লোকেশ রাহুলের। নাইট ক্লাব বৈধ হোক বা অবৈধ, রিকভারির সময় যখন বিশ্রামের প্রয়োজন তখন এমন ক্লাবে যাওয়ার আদৌ কোনও প্রয়োজনিয়তা আছে কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন অনেকে। সমালোচকরা বলছেন, আইপিএলের দৌলতে ক্রিকেটারদের হাতে এত অর্থ-যশ চলে এসেছে, তাদের কাছে দেশের গর্ব হয়ে ওঠার বাসনা বা ক্রিকেট সাধনার বিষয়টাই গৌণ হয়ে গেছে, বরং নিজেদের মনোরঞ্জনটাই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।