Date : 2024-04-12

হাজারো গুণে ভরা তরমুজের বীজ

সঞ্জনা লাহিড়ী, সাংবাদিক- গরমে তৃষ্ণা মেটাতে বা শরীরকে সতেজ রাখতে তরমুজের মতো রসালো ফলের জুড়ি মেলা ভার। তবে শুধু তরমুজ নয়, তরমুজের দানাও শরীরের জন্য সমান উপকারী। তরমুজ খেয়ে বীজ ফেলে না দিয়ে জমিয়ে রেখে পরে খেলে মিলবে উপকার। তরমুজের বীজ কেন শরীরের জন্য উপকারী তা নিয়ে আজ আলোচনা করা যাক।
১) হৃদযন্ত্র ভাল রাখে তরমুজের বীজ। তরমুজের বীজে থাকে প্রচুর পরিমাণে ম্যাগনেসিয়াম। যা রক্তচাপকে নিয়ন্ত্রণে রাখে। এছাড়াও হৃদস্পন্দনকে নিয়ন্ত্রণ করে।
২) তরমুজের বীজে থাকা জিঙ্ক রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। শুধু রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নয় পাশাপাশি সংক্রমণের বিরুদ্ধে মোকাবিলা করে। ও শরীরের নানান ঘাটতি পূরণ করে।
৩) তরমুজের বীজে রয়েছে ফাইবার এবং অপরিশোধিত ফ্যাট যা হজমের সমস্যা থেকে মুক্তি দেয়। পেট পরিস্কার রাখে।
৪) তরমুজ থেকে তৈরি মাস্ক যেমন ত্বকের স্বাস্থ্যকে উন্নত করে তেমনই তরমুজের বীজ খেলে চুল ও ত্বক, উভয়ই খুব ভাল হয়।
৫) তরমুজের বীজ প্রোটিন ও অত্যাবশ্যকীয় ফ্যাটি অ্যাসিডে সমৃদ্ধ। যা ত্বক ও চুল সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। এটি ব্রণ ও সমস্ত প্রদাহ দূর করে।
৬) হাড়ের সুস্থতা: তরমুজের বীজে ক্যালসিয়াম থাকায় হাড়কে সুস্থ রাখে। হাড় ছাড়াও পেশি ও স্নায়ুতন্ত্রকে ভাল রাখে তরমুজের বীজ।
তরমুজের বীজের গুণাবলী তো জানা গেল কিন্তু বীজ খাবেন কিভাবে?
তমুজের বীজ কাঁচা খাবেন না ভেজে তা নিয়ে প্রশ্ন থেকে যায়। যদিও উত্তর হল, একাধিক উপায়ে খাওয়া যেতে পারে তরমুজের বীজ। রান্না করে খাওয়া যেতে পারে। তরমুজের দানা রোদে শুকিয়ে তাওয়া বা চাটুতে রোস্ট করে লবণ ছড়িয়ে খাওয়া যেতে পারে। বীজ গুঁড়ো করে স্যালাড বা যেকোনও খাবারের সঙ্গে টপিং হিসেবে খাওয়া যেতে পারে।
কতটা খাওয়া উপকারী?
তরমুজের বীজ খাওয়া উপকারী। খাওয়ার পদ্ধতিও জানা গেল। এবার কথা হল, কতটা খাওয়া যেতে পারে এই বীজ?
প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় রাখা যায় তরমুজের বীজ। কারণ এতে রয়েছে ভিটামিন, ফাইবার, স্বাস্থ্যকর ফ্যাট ও প্রোটিন। তবে ক্যালোরি বেশি থাকে বলে বেশি না খাওয়াই ভাল। দৈনিক ৩০ গ্রাম পরিমাণে খাওয়া যেতে পারে তরমুজের দানা।
a) তরমুজের দানায় ফাইবার থাকায় যাঁদের পাকস্থলির সমস্যা রয়েছে বা মলত্যাগ অনিয়মিত হয় তাঁদের না খাওয়াই ভাল বা খেলে কম খাওয়া দরকার।
b) তরমুজের দানায় অ্যালার্জিক উপাদান থাকায় যাঁদের অ্যালার্জির সমস্যা রয়েছে তাঁরা এই বীজ এড়িয়ে চললেই ভাল।
c) তরমুজের বীজে পটাশিয়াম থাকে তাই যাঁদের কিডনির সমস্যা রয়েছে তাঁদের খাওয়া উচিত নয়।
বেশির ভাগ মানুষের জন্য তরমুজের বীজ স্বাস্থ্যকর তবে অনেকের জন্য এই বীজ সমস্যার কারণ হতে পারে তাই চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী তরমুজের বীজ খাওয়া যেতে পারে।