Date : 2024-07-16

মানা হয়নি সংরক্ষণ নীতি! অবৈধ নিয়োগ নিয়ে হাই কোর্টের প্রশ্নের মুখে পশ্চিমবঙ্গ গ্রামীণ ব্যাংক।

ষষ্ঠী চট্টোপাধ্যায়, সাংবাদিক : ২০২০ সালে ৪৪টি শূন্য পদে স্পেশাল ওয়ান অফিসার নিয়োগের জন্য পশ্চিমবঙ্গ গ্রামীণ ব্যাংকের বিজ্ঞপ্তি জারি করে। তবে গ্রামীণ ব্যাংকের শূন্য পদ নিয়োগের জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের সংরক্ষণের নির্দেশিকা অনুসারে ৪৪ টি শূন্য পদের জন্য ১০% ই ডব্লু এস অর্থাৎ আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া শ্রেণীর জন্য সংরক্ষণ বাধ্যতামূলক।

হুগলি জেলার আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া শ্রেণীভুক্ত দীপা বন্দ্যোপাধ্যায় আবেদন জানান। পরীক্ষায় পাশ করেন এবং তালিকাভুক্ত হয়েছিলেন। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গ গ্রামীণ ব্যাংক শুধুমাত্র সংরক্ষণের যে ১০% শতাংশর কথা বলা হয়েছিল সেখানে একটি পদেই ই ডব্লিউ এস(EWS) কোটায় নিয়োগ করা হয়েছিল। যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও অবৈধভাবে বাদ দিয়ে দেওয়া হয় দিপাকে। সংরক্ষণ আসন এর মধ্যেই জেনারেলদের নিয়োগ দিয়ে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ জানিয়ে পশ্চিমবঙ্গ গ্রামীণ ব্যাংকের উচ্চপদস্থ আধিকারির কাছে এ বিষয়ে অভিযোগ করেন। কিন্তু কোন সূরাহা পাননি। অবশেষে কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন তিনি।

এদিন মামলাকারী দীপা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পক্ষে আইনজীবী আশীষ কুমার চৌধুরী আদালতে জানান পশ্চিমবঙ্গ গ্রামীণ ব্যাংকের যেকোনো ধরনের নিয়োগ নাবাড (NABARD)সঙ্গে আলোচনা করেই নিয়োগ করতে হবে। এবং কেন্দ্রীয় সরকার গত ৩১ শে জানুয়ারি ২০১৯ সালে যে সংরক্ষণের নির্দেশিকা জারি করেছিল তাতে আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া অনগ্রসর শ্রেণীকে শ্রেণীদের জন্য ১০% শতাংশ কোটা সংরক্ষণ রাখতে হবে। তবে ওই পদে যোগ্য প্রার্থী না পেলেও সাধারণ অর্থাৎ জেনারেল প্রার্থীদের কোনোভাবেই সেই পদে নিয়োগ করা যাবে না।
দেশের প্রতিটি সরকারি ব্যাংক এবং গ্রামীণ ব্যাংকগুলি কেন্দ্রের নির্দেশিকা মানলেও পশ্চিমবঙ্গ গ্রামীণ ব্যাংক কোন এক অদৃশ্য কারণে কেন্দ্রের এই নির্দেশিকা মানেনি। অথচ মামলাকারী হাইকোর্টে দ্বারস্থ হওয়ার পরেই ২০২২ সালে যে নিয়োগ প্রক্রিয়া সেখানে কেন্দ্রের এই সংরক্ষণ নীতি মেনেই নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করে। তাহলে একজন যোগ্য প্রার্থীকে শূন্য পথ থাকা সত্ত্বেও তাকে নিয়োগ না করা, সংরক্ষণ আসনে জেনারেল প্রার্থীকে নিয়োগ করা বেআইনি এবং অবৈধ। যদিও পশ্চিমবঙ্গ গ্রামীণ ব্যাংকের পক্ষের আইনজীবী জানায় ২০২০ সালের নিয়োগ প্রক্রিয়া কেন সংরক্ষণ নীতি মানা হয়নি তার সদুত্তর দিতে পারেনি।

বিচারপতি লোপিতা বন্দোপাধ্যায় নির্দেশ দেন পশ্চিমবঙ্গ গ্রামীণ ব্যাংক কেন্দ্রের নির্দেশিকা না মেনে অনৈতিক কাজ করেছেন ।কারণ কোন গ্রামীণ ব্যাংকে নিজেদের ইচ্ছেমতো কেন্দ্রের সংরক্ষণ নীতি অস্বীকার করে নিজেদের সুবিধামতো নিয়োগ করতে পারে না।। তাই অবিলম্বে বর্তমানে যে নিয়োগ প্রক্রিয়া চলছে সেই নিয়োগ প্রক্রিয়ায় অতিরিক্ত ২০২০ সালের তিনটি শূন্য পদ যোগ করে মামলাকারিকে তার বয়সের ছাড় নিয়োগ প্রক্রিয়া সুযোগ দিতে হবে।