Date : 2024-06-25

Kolkata High Court : রাজ্যে স্কুল সার্ভিস কমিশনের নতুন মেধা তালিকায় বিস্তর অসঙ্গতি ! হাইকোর্টে মামলা দায়ের

ষষ্ঠী চট্টোপাধ্যায়,সাংবাদিক : নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করতে গত ২৩ শে আগস্ট রাজ্যে স্কুল সার্ভিস কমিশন নতুন প্যানেল প্রকাশ করে। সেই প্যানেলের চূড়ান্ত অসংগতির অভিযোগ তুলে হাইকোর্টের দ্বারস্থ কয়েক হাজার চাকুরী প্রার্থী। মামলা। গত১৬ই আগস্ট স্কুল সার্ভিস কমিশনকে ডিভিশন বেঞ্চ নির্দেশ দিয়েছিল যে তারা নতুন যে প্যানেল তৈরি করেছে তার তালিকা প্রকাশ করবে।
কিন্তু কোর্টের অনুমতি ছাড়া নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করতে পারবে না স্কুল সার্ভিস কমিশন। শুধু তাই নয় মামলাকারীদের অভিযোগ থাকলে আদালত পরবর্তীতে সেই অভিযোগ সম্পর্কিত আবেদন করতে পারবেন।

২০১৬ সালে উচ্চ প্রাথমিকের নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হয়। পহেলা অক্টোবর ২০১৯ সালে প্রথম মেধাতালিকা প্রকাশ করে রাজ্যে স্কুল সার্ভিস কমিশন। কিছু অকৃতকার্য পরীক্ষার্থী সেই তালিকা চ্যালেঞ্জ করে কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন। ১১ ই ডিসেম্বর ২০২০ সালে বিচারপতি মৌসুমী ভট্টাচার্য এসএসসির মেধা তালিকা বাতিল করে দেন এবং প্রার্থীদের তথ্য আপলোড করে সমস্ত তথ্য প্রকাশ করতে নির্দেশ দেন। এবং নতুন করে ইন্টারভিউর পাশাপাশি মেধা তালিকা প্রকাশ করতে বলেন।

২১শে জুন ২০২১ সালে স্কুল সার্ভিস কমিশন ইন্টারভিউ তালিকা প্রকাশ করে। সেখানে যারা প্রথম মেধা তালিকায় অন্তর্ভুক্ত ছিল তাদের নাম বাদ দিয়ে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। পরবর্তীতে বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের এজলাসে অভিযোগ স্বচ্ছ ভাবে তৈরি করেনি স্কুল সার্ভিস কমিশন। তালিকাভুক্ত অনেক চাকরি প্রার্থী তাদের শিক্ষাগত যোগ্যতার প্রমাণপত্র বিকৃত করা হয়েছে, শুধু তাই নয় অনেকের নম্বর বাড়িয়ে দেখানো হয়েছে। টেটের প্রাপ্ত নম্বর বাড়ানো হয়েছে অনেকই প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত নয় এমন অনেক প্রার্থীরাই সেই তালিকা স্থান পেয়েছে বলে অভিযোগ।বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় নির্দেশ দেন মামলাকারীদের ব্যক্তিগত অভিযোগ তারা স্কুল সার্ভিস কমিশনের কাছে জানাতে পারবে। পরবর্তীকালে সেই নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে ১৫০ জন মামলাকারী।

কলকাতা হাইকোর্টের প্রাক্তন বিচারপতি সুব্রত তালুকদারের ডিভিশন বেঞ্চ মামলার শুনানির শেষে বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় নির্দেশ বহাল রাখেন।২৪শে জুলাই ২০২১ সালের মধ্যে সমস্ত মামলাকারীদের স্কুল সার্ভিস কমিশনের কাছে অভিযোগ দায়ের করতে নির্দেশ দেন। কয়েক হাজার পরীক্ষার্থী ২১শে জুন ২০২১ সালে ইন্টারভিউ তালিকার বৈধতা কে চ্যালেঞ্জ করে স্কুল সার্ভিস কমিশনের কাছে সমস্ত অভিযোগ দায়ের করেন। কিন্তু স্কুল সার্ভিস কমিশন সেই অভিযোগ গুলো খতিয়ে না দেখেই গড়পত্তা নির্দেশ দেন এবং জানায় মামলাকারীদের কোন যোগ্যতাই নেই।

বুধবার বিচারপতি সৌমেন সেনের ডিভিশন বেঞ্চে মামলা শুনানিতে ১৫০ জন চাকরি প্রার্থীর পক্ষের আইনজীবী আশীষ কুমার চৌধুরী আদালতে লিখিতভাবে জানান যে তাঁরা প্রথম মেধা তালিকায় অন্তর্ভুক্ত ছিল। তাদের সেই তালিকা থেকে কেন বাদ দিয়ে দেওয়া হলো তার কোন ব্যাখ্যা দেয় নি এসএসসি। অনেক তালিকাভুক্ত চাকরিপ্রার্থীদের আবেদন পত্র বিকৃত করা হয়েছে। মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিকের প্রার্থীদের প্রাপ্ত নম্বর বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে ।পাশাপাশি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ টেট ওয়েটেজ (টেটে নম্বর)Re Assessment করে প্রথম মেধা তালিকা তৈরি করা হয়েছিল সেই জন্য প্রথম মেধা তালিকা বাতিল হয়। অথচ সেই নাম্বারের ভিত্তিতে অনেকে নতুন মেধা তালিকায় স্থান পেয়েছে।স্কুল সার্ভিস কমিশনের OMR যাচাইয়ের তথ্য এখানে গুরুত্বহীন,কারণ এসএসসি সমস্ত প্রার্থীদের OMR প্রকাশ করেনি। তাহলে সেই মেধা তালিকা ত্রুটিপূর্ণ। এই কারণে প্রথম মেধা তালিকাভুক্ত প্রার্থীদের অযোগ্য বলার নৈতিকতা নেই।

বিচারপতি সৌমেন সেনের ডিভিশন বেঞ্চ নির্দেশ দেন আগামী ৪ঠা সেপ্টেম্বরের মধ্যে অন্যান্য মামলাকারীদের লিখিত বক্তব্য আদালতে যেমন জমা দেবে পাশাপাশি রাজ্যের স্কুল সার্ভিস কমিশন ১৩ই সেপ্টেম্বর তার উত্তর দেবেন এবং ১৪ ই সেপ্টেম্বর মামলার পরবর্তী শুনানি।