Date : 2024-04-13

দেহদান ও চক্ষুদানের সচেতনা বৃদ্ধিতে সম্মেলন বাঁকুড়া’য়

স্বামী বিবেকানন্দ’র সেই চিরায়ত সত্য বাক্য, “জীবে প্রেম করে যেই জন সেই জন সেবিছে ঈশ্বর” । জীবিত অবস্থায় জীবে প্রেম করে মানুষ ও ঈশ্বর সেবা করার পরে মৃত্যু হলে তারপর কিভাবে মানুষের সেবা করা সম্ভব ? প্রশ্ন উঠলে তার উত্তরও আছে । মৃত্যুর পর সেই ব্যক্তির প্রত্যক্ষভাবে মানুষের সেবা করার কোনো সুযোগ না থাকলেও পরোক্ষভাবে মানুষের সেবা করার সুযোগ আছে । সেই সুযোগ করে দিয়ে যেতে হবে জীবিত অবস্থাতেই শুধু মাত্র “দেহদান”-এর একটা সন্মতি পত্রে কয়েকটা সই করে । দেহদান ও চক্ষুদানের মতো বিষয় নিয়ে মানুষের মধ্যে সচেতনতা বাড়াতেই ২০০৫ সালে বাঁকুড়া শহরে লেখক, শিল্পী, সাহিত্যিক ও বুদ্ধিজীবীদের নিয়ে তৈরী হয় এক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা “আমরা সবাই একসাথে” ।

গত ১৮ ফেব্রুয়ারী মরনোত্তর দেহদান, চক্ষুদান, থ্যালাসেমিয়া’র মতো বিষয় নিয়ে আলোচনার জন্য বাঁকুড়া চাঁদমারিডাঙ্গা’র একটি লজের রশিদ খান নামাঙ্কিত মঞ্চে একত্রিত হয়ে এক সচেতনতা শিবির ও সম্মেলনের আয়োজন করে স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা “আমরা সবাই একসাথে”-র সদস্য-সদস্যারা । ১৫তম দ্বিবার্ষিক এই সম্মেলনে বিশিষ্টদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাঁকুড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য গৌতমবুদ্ধ সুরাল, বাঁকুড়া মেডিকেল কলেজের সুপার সপ্তর্ষী চট্টোপাধ্যায় সহ ৫ সুপার, ২২ জন চিকিৎসক, ১৬ জন আইনজীবী এবং শিল্প ও সাহিত্য জগতের বিশিষ্টরা ।

মানুষের মধ্যে সচেতনতা বাড়ানোর উদ্যোগ নেওয়া এই স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা “আমরা সবাই একসাথে”-র সাধারণ সম্পাদক সমীরণ সেনগুপ্ত বলেন, “বর্তমান সময়ে ডাক্তারী পড়ুয়াদের সবথেকে বড় সমস্যা মানুষের মৃতদেহ । প্রথম বর্ষের পড়ুয়ারা মানব দেহের বিভিন্ন অঙ্গ প্রতঙ্গ থেকে যে শিক্ষা গ্রহণ করে সেই শিক্ষাই তারা ঠিক মতো পাচ্ছে না । কারণ অ্যানাটমি ও ফিজিওলজি পড়ার জন্য মৃতদেহের আকাল । যার ফলে পড়ুয়াদের একই দেহের বিভিন্ন অঙ্গ প্রত্যঙ্গ নিয়ে বারবার পরীক্ষা নিরীক্ষা করতে হচ্ছে । যেটা আদতে তাদের শিক্ষায় অন্তরায় হয়ে দাঁড়াচ্ছে । এই জন্যই আমরা মানুষকে উৎসাহিত করছি দেহদান করার জন্য । মরণোত্তর দেহদানে উৎসাহ বাড়াতে পথে নেমেছে আমাদের সংগঠন ‘’আমরা সবাই একসাথে’’ । একইসঙ্গে চক্ষুদানের জন্যও আমাদের প্রচার অভিযান চলছে ।”

শুধু মাত্র দেহদান ও চক্ষুদানের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নেই সংস্থার প্রচার । থ্যালাসেমিয়া রুখতে “বিয়ের আগে পাত্র পাত্রীর
রক্ত পরীক্ষা” যে অত্যন্ত জরুরী এটাও তুলে ধরা হচ্ছে সাধারণ মানুষের মধ্যে । এই প্রচারকে সামনে রেখেই “আমরা সবাই একসাথে”-র আয়োজনে সাত দিন ধরে সাইকেল চালিয়ে সাতশ আশি কিলোমিটার পথ অতিক্রম করে পনেরো জন যুবক যুবতী ।