Date : 2024-04-14

বঞ্চিত জব কার্ড হোল্ডারদের সঠিক সংখ্যা কত ? মমতা, অভিষেকের তথ্যে বাড়ছে ভ্রান্তি

সঞ্জু সুর, সাংবাদিক ঃ এরাজ্যে একশো দিনের কাজে বঞ্চিত জব কার্ড হোল্ডারদের বকেয়া টাকা নিজেরাই দেবে রাজ্য সরকার। এটা এখন আর নতুন কথা নয়। তবে রাজ্যের বঞ্চিত জব কার্ড হোল্ডারদের সঠিক সংখ্যা কত তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। বৃহস্পতিবার মুখ্যমন্ত্রী যে সংখ্যার কথা জানিয়েছিলেন, ঠিক একদিন পরে অভিষেকের দেওয়া তথ্যে সেই সংখ্যা বেড়ে গেলো প্রায় আড়াই লক্ষ।

ফেব্রুয়ারি মাসের তিন তারিখ রেড রোডের ধরণা মঞ্চ থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করেছিলেন একশো দিনের কাজে এরাজ্যের ২১ লক্ষ বঞ্চিত জব কার্ড হোল্ডারদের গত দুই বছরের বকেয়া টাকা মিটিয়ে দেবে রাজ্য সরকার। ২১ ফেব্রুয়ারি দেওয়া হবে সেই টাকা। মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণার পরেই রাজ্যজুড়ে বঞ্চিত জব কার্ড হোল্ডারদের তথ্য সংগ্রহে নামে সরকার। তথ্য সংগ্রহের জন্য রাজ্যের পঞ্চায়েত দপ্তরের পক্ষ থেকে এসওপি ও জারি করা হয়। ইতিমধ্যে সেই তথ্য হাতে এসেছে নবান্নের। বৃহস্পতিবার বিধানসভায় বাজেট ভার্সনে অংশ নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “আমি বলেছিলাম একুশ ফেব্রুয়ারি ১০০ দিনের কাজের বকেয়া টাকা বঞ্চিত জব কার্ড হোল্ডারদের দিয়ে দেওয়া হবে। তবে সেটা একুশ ফেব্রুয়ারি হচ্ছে না। কারণ মোট বঞ্চিত জব কার্ড হোল্ডারদের সংখ্যাটা বেশ কিছুটা বেড়ে গিয়েছে। ২১ লক্ষ নয়, এই সংখ্যাটা আমরা এখনো যা পেয়েছি তা হল ২৪ লক্ষ ৫০ হাজার।” প্রকৃত জব কার্ড হোল্ডারদের সংখ্যা প্রায় সাড়ে তিন লক্ষ বেড়ে যাওয়ার কারণে মুখ্যমন্ত্রী অধিবেশন কক্ষেই বলেন আমি আরো এক সপ্তাহ সময় নিচ্ছি।

মার্চ মাসের এক তারিখেই সবার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে টাকা পৌঁছে যাবে। বিধানসভায় মুখ্যমন্ত্রীর এই বক্তব্যের চব্বিশ ঘন্টা কাটতে না কাটতেই দেখা গেল তৃণমূল কংগ্রেসের সেকেন্ড ইন কমান্ড অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় যে তথ্য দিচ্ছেন তাতে এই ২৪ লক্ষ ৫০ হাজার বঞ্চিত জব কার্ড হোল্ডারদের সংখ্যা আরো বেশ কিছুটা বেড়ে গিয়েছে। শুক্রবার দলীয় সাংসদ, বিধায়ক ও ব্লক সভাপতিদের সঙ্গে হ‌ওয়ায়ভার্চুয়াল বৈঠকে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “রাজ্যে ১০০ দিনের কাজে বঞ্চিত জব কার্ড হোল্ডারদের সংখ্যা ২২ লক্ষ নয়, সংখ্যাটা প্রায় ২৭ লক্ষ।” অভিষেকের আরও সংযোজন, যে টাকা ওরা গত দুই বছর ধরে আটকে রেখেছে তার পরিমাণ প্রায় চার হাজার কোটি টাকা। ১০০ দিনের কাজের বকেয়া টাকার পরিমাণ নিয়ে তেমন ভ্রান্তি না হলেও, বিধানসভায় দেওয়া মুখ্যমন্ত্রীর পরিসংখ্যান (বঞ্চিত জব কার্ড হোল্ডার) এবং ভার্চুয়াল বৈঠকে দেওয়া অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের পরিসংখ্যান নিয়ে একটা ভ্রান্তি তো তৈরি হচ্ছেই। এই বিষয় নিয়ে পঞ্চায়েত দপ্তরের এক আমলা জানালেন, “অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় কি বলেছেন সেটা আমি বলতে পারব না। তবে মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী বিধানসভায় যেটা বলেছেন সেই সংখ্যাটি বৃহস্পতিবার বেলা দশটা পর্যন্ত পঞ্চায়েত দপ্তরের হাতে পাওয়া সংখ্যার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ।” শুক্রবারের বৈঠকে যোগ দেওয়া রাজ্যের এক মন্ত্রীর অবশ্য বক্তব্য, “দলীয় স্তরে অভিষেকের কাছে যে সংখ্যা এসে পৌঁছেছে অভিষেক সেটাই বলেছে।” তবে এই বিষয় নিয়ে নবান্নের এক উচ্চ পদস্থ হামলার বক্তব্য, “অত জল্পনা বা ভ্রান্তির কিছু নেই। ১০০ দিনের কাজে যেসব বঞ্চিত জব কার্ড হোল্ডারদের টাকা দেওয়া হবে তাদের সবার নাম প্রকাশ্যে আনা হবে। সঠিক সংখ্যা আপনারা সেখান থেকেই পেয়ে যাবেন।”