Date : 2019-11-18

প্রেমের টানে এডিএম-এর বাড়ি ছেড়ে বেপাত্তা বিড়াল, খুঁজে দিলেই মিলবে ২০০০….

পশ্চিম মেদিনীপুর: বয়স মাত্র দেড় বছর। আর এই বয়সেই নাকি প্রেম! কালীপুজোর রাত থেকেই দেখা নেই তার। প্রেমিকার সঙ্গে নাকি বাড়ি ছেড়েছে নাকি! চিন্তায় নাওয়া-খাওয়া ছেড়েছে পশ্চিম মেদিনীপুরের অতিরিক্ত জেলাশাসক ও তাঁর পরিবার। আদরের বিড়াল পুচু কি অভিমান করে বাড়ি ছেড়েছে? না না, কালীপুজোর দিন বাড়ি ছাড়ার আগে নাকি অন্য একটি বিড়াল এসেছিল তার কাছে। তারপর থেকেই আর দেখা মিলছে না পুচুর।

রসগোল্লা তুমি কার? ভৌগলিক দিক থেকেও ওড়িশাকে পিছনে ফেলে দিল বাংলা

পশ্চিম মেদিনীপুরের অতিরিক্ত জেলা শাসকের মেয়ে উর্ণিতার অত্যন্ত প্রিয় পোষ্য এই বিড়ালটি। বেলঘড়িয়া রামকৃষ্ণ মিশনের কাছ থেকে বিড়ালটিকে নিয়ে এসেছিল সে। তারপর থেকেই জেলা শাসকের বাংলোয় পরম যত্নে পালিত হচ্ছিল সে। কলকাতায় বেথুন কলেজে পড়াশুনার জন্য হোস্টেলে থাকে উর্ণিতা। তার প্রিয় পোষ্যটি হারিয়ে যাওয়ার খবর শুনে তরিঘরি মেদিনীপুরের বাড়িতে চলে এসেছে উর্ণিতা। বিড়ালের খোঁজ করা হচ্ছে তন্ন তন্ন করে। তবে বাড়ির লোকে জানিয়েছেন, এর আগেও পালিয়ে গিয়েছিল পুচু। এমন কি হল, যে বাড়ি ছাড়ল পুচু।

পশু বিশেষজ্ঞদের মত, সমবয়সের সঙ্গীর টানেই চলে গিয়েছে পুচু। কলীপুজোর বেশ কিছুদিন আগে থেকেই এলাকায় ঘুরে বেড়াচ্ছিল মেয়ে বিড়ালটি। এরপরেই ওই মেয়ে বিড়ালটির সঙ্গে বেপাত্তা হয়ে গেছে পুচু। কাজেই রহস্য বাড়ছে প্রেম তত্ত্বের। সব মিলিয়ে প্রেমের রসায়ন এখন বেশ মাখোমাখো। এদিকে পুচুর খোঁজে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছে উর্ণিতা। পোষ্য বিড়ালটিকে খুঁজে দিলেই মিলবে নগদ ২০০০ টাকা। সন্ধান চাই বলে বিজ্ঞাপন দিয়ে রীতিমতো পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছে। ঠিকানাও দেওয়া আছে পোস্টে। পশ্চিম মেদিনীপুরের অতিরিক্ত জেলাশাসক উত্তমবাবু জানিয়েছেন, প্রিয় পোষ্যের বিরহে নাওয়া খাওয়া ত্যাগ করেছে তাঁর মেয়ে।