Date : 2020-08-14

রসনাতৃপ্তির ১১৭ বছর, কলকাতার কেক উপনিবেশ এখনও নাহুমসের…

কলকাতা:- আর মাত্র কয়েক ঘন্টার অপেক্ষা, তারপরেই গীর্জার মাথার উপর বেজে উঠবে ঘন্টাধ্বনি। রাতের আঁধারে বাইবেল হাতে পিয়ানোর সুরে ছোট্ট ছোট্টো মোমবাতি তারার মতো জ্বলে উঠবে। ২ হাজার বছর আগে বেথলেহেম শহরের আকাশে উদিত সেই দিব্য ঔজ্জ্বলের অধিকারী নক্ষত্রকে আরও একবার আহ্বান জানাবেন মানুষ। প্রার্থনা আর আবেগে “মিড নাইট মাস” শুরু হবে বিশ্বজুড়ে। কনকনে শীতে কলকাতার বড়দিন শুরু হবে আর রকমারি চকলেট, মিষ্টি, কেক, প্যস্ট্রিতে রসনা তৃপ্তি করবে না বাঙালি তা কখনও হয়? কত রকমের কেক না আজকাল পাওয়া যায়, চকোলেট… ফ্রুট…।

কত স্টার্টআপ শুধু কেকের ব্যবসাতেই জমিয়ে দিয়েছে। কলকাতার কেকের রাজধানী নিউমার্কেটের নাম শুনলেই জিভে জল আসে। শুধু বড়দিন নয়, সারা বছরই কেক কেনার জন্য রেশন দোকানের মতো লাইন পড়ে নিউ মার্কেটের বেকারিগুলোর সামনে।

ক্রিসমাসের মুখে কলকাতা পুলিশের কাজ বেড়েছে

বড়দিন আসে বড়দিন যায়, একটু একটু করে বয়স বাড়ে শতাব্দী প্রাচীন কলকাতার কেক বেকারি গুলির। কলকাতার প্রসিদ্ধ বেকারিগুলির মধ্যে অন্যতম হল নাহুমস বেকারি। বয়স ১১৭ বছর। রিচ ফ্রুট স্পেশাল কেক থেকে গরম পুডিং-এর স্বাদে ১০০ বছরেরও বেশি সময় ধরে রসনা তৃপ্তি করে চলেছে শহরবাসীর।

বড়দিনের আনন্দে ১০০ বছর অতিক্রান্ত নাহুমস বেকারির ইতিহাস রোমন্থন করলেন সেই দোকানের বর্তমান মালিক আইজ্যাক নাহুম। গোটা বছর ইজরায়েলে পূর্বপুরুষের ভিটে দিন কাটলেও বড়দিনে কলকাতায় আসার কথা ভোলেন না আইজ্যাক।

২ জানুয়ারি থেকে পরিবর্তিত বাসরুটের ফাঁসে শহর!

নাহুমস বেকারি শুধুমাত্র তাঁর পৈতৃক ব্যবসা নয়। এই দোকানের সঙ্গে জড়িয়ে আছে তাঁর পরিবারের স্মৃতি। শৈশবে ইংল্যান্ডে পড়াশুনো করেছেন। ফোর্ট উইলিয়ামের মাথায় তখন পতপত করে উড়ছে কুইন এলিজাবেথের দেশের পতাকা।

কলকাতাকে ভালোবেসে নাহুমস পরিবারের কর্তা তথা আইজ্যাক নাহুমস-এর দাদু একটি বেকারির দোকান তৈরি করেন। ৮০ বছর কোঠায় দাঁড়িয়ে বৃদ্ধ আইজ্যাক জানালেন, এই দোকানের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক ৬৫ বছরের। আশেপাশে ব্যাঙের ছাতার মতো গজিয়ে উঠেছে অসংখ্য দোকান। কিন্তু কেউই জায়গা নিতে পারেনি নাহুমসের। কেক থেকে প্যাটিস বিস্কুট থেকে কুকিস প্রায় ৩৫ থেকে ৪০ রকমের সম্ভার নিয়ে কলকাতাবাসীর মন জয় করেছে সুবিশাল এই কেকশপ।

কলকাতার বিখ্যাত গলি হগ মার্কেটে রমরমিয়ে চলে নাহুম পরিবারের ব্যবসা। ক্রেতাদের অনেকেই জানিয়েছেন, এই শপের প্রধান আকর্ষণ চকলেট, স্ট্রবেরি কেক কিংবা রাম বল। তবে শীতের সময় প্রধানত বড়দিন এবং নতুন বছরে ক্রেতাদের চোখের মণি হয়ে ওঠে রিচ ফ্রুট কেক। তাদের রিচ ফ্রুট কেকের মধ্যেও রয়েছে স্পেশালিটি। শীতে চাহিদার তুঙ্গে থাকে নাহুমস স্পেশাল পুডিং। বিকেলে গরম পুডিং হাতে নিয়ে লোভ সামলানো বেশ কঠিন।এছাড়াও সবসময়ের জন্যই রয়েছে ব্রাটুনি, ব্ল্যাক ফরেস্ট, ক্রুজের মতো নানা কেক ও পেস্ট্রির সম্ভার । আগের চেয়ে এখন অনেক নতুন ধরণের কেক তৈরি করছেন এঁরা। ফলে স্টক বেড়েছে। যেমন নতুন সংযোজন বিস্কুট। স্মৃতির কথা বলতে বলতে চোখের কোণ চিক চিক করে উঠল বৃদ্ধ আইজ্যাকের। কলকাতাকে রসনাতৃপ্তি করতে পেরে এখনও তাঁর ঠোটে ফুটে ওঠে মৃদু হাসি।