Date : 2021-10-19

NRC বিরুদ্ধে মুখ্যমন্ত্রী আন্দোলন তৃতীয় দিনে, হাওড়া থেকে ডোরিনা পর্যন্ত পদযাত্রা….

ওয়েব ডেস্ক:- নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের প্রতিবাদে রাজ্য জুড়ে তৃণমূল কংগ্রেসের আন্দোলন তৃতীয় দিনে পড়ল। আজ বেলা ১ টায় হাওড়া ময়দান থেকে মিছিল করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পৌঁছান ধর্মতলার ডোরিনা ক্রসিং-এ। সঙ্গে ছিলেন প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়, দিব্যেন্দু বিশ্বাস ও সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় সহ রাজ্যের তৃণমূল সাংসদ ও মন্ত্রী ও হাওড়া জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব। মিছিলে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে পা মেলালেন অসংখ্য তৃণমূল সমর্থক। মিছিলের কারণে হাওড়া থেকে কলকাতার দিকে আগত যানবাহন নিয়ন্ত্রণ করা হবে। এর ফলে ভোগান্তির মুখে পড়বেন সাধারণ মানুষ।

নির্ভয়াকাণ্ডে দোষী অক্ষয় সিং-এর মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখল সুপ্রিম কোর্ট

এদিন ধর্মতলার ডোরিনা ক্রসিং থেকে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে কড়া বার্তা দিলেন। গত সপ্তাহেই CAA এবং NRC-র প্রতিবাদে গণআন্দোলনের ডাক দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের বার্তা দিয়ে পথে নেমেছেন তিনিও। বিভিন্ন জেলা-সহ সমগ্র রাজ্যজুড়েই চলছে প্রতিবাদ মিছিল। গতকালও দক্ষিণ কলকাতায় পদযাত্রায় যোগ দেয় তৃণমূল কর্মী সমর্থক-সহ সাধারণ মানুষ।

এদিন মুখ্যমন্ত্রী ডোরিনা ক্রসিং-এর মঞ্চ থেকে বলেন,

গণতান্ত্রিক আন্দোলন রাস্তায় দাঁড়িয়ে হয়, বুলেট দিয়ে হয় না। কিছু জায়গায় সমস্যা হয়েছে। আর তাতেই ট্রেন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

গান গেয়ে, ছবি এঁকে প্রতিবাদ করবেন। রাস্তা অবরোধ করে আন্দোলন করবেন না। বাংলা সাম্প্রদায়িক লড়াই করে না। আমার জিবনে কথার দাম অনেক বেশি।

দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীকে বলছি দেশে আগুন জ্বালাবেন না। এটা আপনার কাজ না। আপনার কাজ দেশের আগুন নেভানো। দেশের একাধিক রাজ্য যখন জ্বলছে তখন ফের নানা মন্তব্য করছেন তিনি। দেশের মানুষের হিসাবে আমি আপনার কাছে জানতে চাই। কেন বলেছেন আধার কার্ড এর মধ্যে হবে না। তাহলে সব কিছুতে কেন আধার কার্ড ব্যবহার কেন করা হলো। কোন কার্ড কাজে আসবে না তাহলে কি শুধু বিজেপির মাদুলি কাজে আসবে।

গুলি করে মেরে দিতে বলছে এটা কি ধরনের কথা।

আমার কাছে তথ্য আসছে, সব কিছু ঠিক হয়ে গেছে। এই রাজ্য পরিদর্শন করতে আসবে বলছে সেখানে বলা উচিত তারা এখানে পরিদর্শন করতে আসছে। তারা কেন দিল্লিতে পরিদর্শনে যাচ্ছে না।

দলের নেতাদের ও নিজেদের সংযত রাখুন, অমিত শাহ কে বার্তা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। আগুন জ্বালানো সহজ, আগুন নেভানো কঠিন না।

সরকার আসে আবার সরকার চলে যায়। কিন্তু অসাংবিধানিক আইন মেনে নেওয়া যায় না।

বিজেপির টাকায় ফেক ভিডিও হয়।

যেদিন ডাক দেবো, সবাইকে সেদিন আসতে হবে।