Date : 2020-09-25

জঙ্গি হামলায় কেন্দ্রীয় সরকারের ক্ষতিপূরণ পেতে এবার আধার কার্ড বাধ্যতামূলক

ওয়েব ডেস্ক: এবার জঙ্গি হামলা ও সাম্প্রদায়িক অশান্তিতে ক্ষতিগ্রস্থদের কেন্দ্রীয় সরকারের ক্ষতিপূরণের জন্য প্রয়োজন হবে আধার সংক্রান্ত তথ্য। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের নির্দেশিকা বলছে, ‘সন্ত্রাসবাদী, মাওবাদী, সাম্প্রদায়িক হিংসার শিকার, সীমান্তে গোলাগুলি, মাইন বা আইডি বিস্ফোরণে প্রাণ হারানো ব্যক্তিদের পরিবার কেন্দ্রীয় সরকারি প্রকল্পে আর্থিক সাহায্য পেতে চাইলে তাঁদের আধার নম্বর-সহ তথ্য প্রমাণাদি পেশ করতে হবে।’ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে অসম ও মেঘালয় বাদে দেশের সব রাজ্যে এই নিয়ম চালু হবে। কেন্দ্রের এই সীদ্ধান্তকে স্বৈরাচারী পদক্ষেপ বলে কটাক্ষ করেছেন বিরোধীরা। রাজ্য সরকারের তরফে আবেদন পেলে তবেই কেন্দ্রের তরফে অর্থ বরাদ্দ করা হবে। বাৎসরিক প্রায় ৬ থেকে ৭ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হবে আর্থিক ক্ষতিপূরণ দেওয়ার জন্য।

যদি কারও আধার কার্ড না থাকে তবে আধার নথিভুক্তকরণের জন্য সংশ্লিষ্ট দফতরের নিকটবর্তী কেন্দ্রের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে। উক্ত ব্যক্তি যতদিন না আধার পাচ্ছেন, তিনি আধার এনরোলমেন্ট আইডেন্টিফিকেশন স্লিপ দেখিয়ে কেন্দ্রীয় প্রকল্পের সুবিধা পেতে পারেন। তবে, স্লিপের সঙ্গে দিতে হবে নিম্নোক্ত নথিগুলির যে কোনও একটি- ব্যাঙ্ক বা পোস্ট অফিসের সচিত্র পাসবুক, ভোটার আইডি কার্ড, প্যান কার্ড, রেশন কার্ড, পাসপোর্ট, কিসান ফটো পাসবুক, ড্রাইভিং লাইসেন্স, গেজেটেড অফিসার বা অফিসিয়াল লেটার হেডে তহশিলদারের অনুমোদিত যে কোনও সচিত্র সার্টিফিকেট, এমজিনারেগা প্রকল্পের জব কার্ড বা মন্ত্রক নির্দিষ্ট যে কোনও নথি।

তিনি ভারত রত্নের থেকে অনেকটাই উচুতে, মহাত্মা গান্ধীর ভারত রত্ন প্রসঙ্গে জানাল সুপ্রিম কোর্ট

এর আগে একাধিক কেন্দ্রীয় সুবিধা পাওয়ার ক্ষেত্রে আধারকার্ডের প্রয়োজনীয়তা ছিল।কিছুদিন আগে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে জানা হয়েছে আধার কার্ড করতে আর পিতা-মাতার পরিচয় বা বংশ পরিচয়ের প্রয়োজন বাধ্যতামূলক নয়। বিরোধীদের বক্তব্য আধার কার্ড বা ভোটার কার্ড নাগরিকত্ব প্রমানের ক্ষেত্রেও প্রয়োজনীয় নয় তবে কেন্দ্রীয় সরকারের ক্ষতিপূরণ পাওয়ার জন্য কেন তা জরুরি হবে?