Date : 2021-10-19

সারাদিনে বরাদ্দ চারটে লাড্ডু! খিদের জ্বালায় ডিভোর্সের মামলা স্বামীর…

ওয়েব ডেস্ক: কথায় বলে বিয়ে মানে “দিল্লি কা লাড্ডু”। লাড্ডু খান বা না খান পস্তাতে তো হবেই। না দিল্লি নয় মেরঠে বসে লাড্ডু খেয়ে খেয়ে অস্থির হয়ে উঠেছেন এই ব্যক্তি। চার বেলা খেতে বসলেই পাতে পড়ে লাড্ডু। স্ত্রীর নির্দেশ, লাড্ডু খেয়েই থাকতে হবে তাকে। তাই এবার স্ত্রীর বিরুদ্ধে বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা ঠুকে দিয়েছেন তিনি। আদালতে মামলা করে তিনি জানিয়েছেন, সকালে ঘুম থেকে উঠে বরাদ্দ ৪ টে লাড্ডু, সন্ধ্যেয় আবার চারটে লাড্ডু, এই হল মেরঠের বাসিন্দা ওই ব্যক্তির রোজের খাবার।

এর মাঝে খিদে পেলে ছটফট করা ছাড়া আর কোন উপায় নেই, কারণ অন্য কিছু খাওয়া নৈব নৈব চঃ। দীর্ঘদিন এই অবস্থা সহ্য করতে না পেরে ফ্যামিলি কোর্টে শেষ পর্যন্ত ডিভোর্সের মামলা করা ছাড়া তাঁর কাছে আর কোন উপায় ছিল না। আইনজীবীকে তিনি জানিয়েছেন, এই সব কিছুর নেপথ্য রয়েছে এক তান্ত্রিক বাবাজির নিদান। সেই তান্ত্রিকের আজব নিদান শুনলে চমকে উঠবেন। স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক স্বাভাবিক করার জন্য দিনে রাতে স্বামীকে শুধু চারটি করে লাড্ডু খাওয়ার নিদান দিয়েছেন বাবাজি।

আরও পড়ুন : দেহব্যবসার পথে ঠেলে দিল মা, ধর্ষক দাদা, অভিযোগ কিশোরীর

আরও পড়ুন : পুলিশ কনস্টেবলের সঙ্গে গ্যাংস্টারের ভালবাসা, গড়াল বিয়ে পর্যন্ত

এতে নাকি স্বামী স্ত্রীর কথা শুনেই চলূবেন। আর সেই নিদান শুনেই ওই ব্যক্তিকে স্ত্রী শুধুমাত্র লাড্ডু খাওয়ানো শুরু করে। কোর্টের নির্দেশে আপাতত মেরঠে কাউন্সিলিং চলছে ওই দম্পতির। প্রসঙ্গত, ১০ বছর আগে ওই দম্পতির বিবাহ হয়। তাদের তিন সন্তানও আছে। মহিলা প্রথম থেকেই কুসংস্কারে ভায়ঙ্কর ভাবে বিশ্বাসী। কিছু হলেই সমস্যার সমাধানে ছুটে যান তান্ত্রিকের কাছে। এখন ওই মহিলার বিশ্বাস তার স্বামী অসুস্থ। তাই তান্ত্রিকের কথা মতো চললে সে সুস্থ্য হয়ে যাবে এবং তাদের সম্পর্ক সুস্থ হবে।