Date : 2020-01-18

যাদবপুরে ধারাবাহিক এটিএম জালিয়াতির শিকার ৩০ গ্রাহক, আতঙ্কে শহর…..

কলকাতা:- শহরে বড়সড় এটিএম জালিয়াতির জাল ধরা পড়ল যাদবপুর অঞ্চলে। ব্যাঙ্কে সঞ্চিত অর্থ খোয়ানোর আতঙ্কে কাটা গ্রাহকরা। ইতিমধ্যে যাদবপুর থানায় প্রায় ৩০ জন গ্রাহকের এটিএম জালিয়াতির অভিযোগ জমা পড়েছে। ওই গ্রাহকদের অ্যাকাউন্ট থেকে প্রায় সব মিলিয়ে ৫ লক্ষ টাকা গায়েব হয়ে গিয়েছে রবিবার রাতে। এর আগে একই কায়দায় গোলপার্কে এটিএম জালিয়াতির ঘটনায় একটি রোমানিয় গ্যাং-এর হদিশ পেয়েছিল পুলিশ। যাদবপুরের ঘটনায় তেমন কোন গ্যাং জড়িত আছে কিনা সেই নিয়ে বিস্তারিত তথ্য এখনও পৌঁছায়নি পুলিশের কাছে। তবে লালবাজারের গোয়েন্দাদের অনুমান অত্যাধুনিক স্কিমিং মেশিন দিয়ে এটিএম জালিয়াতি করা হয়েছে। যা দিয়ে একদিকে কার্ডের ম্যাগনেটিক স্ট্রিপের ট্র্যাক ১ ও ট্র্যাক ২-এর তথ্য কপি হয়ে যাচ্ছে। একইসঙ্গে কপি হয়ে যাচ্ছে চিপের তথ্যও।

এখনও মেলেনি কেন্দ্রীয় সাহায্য, ফ্লাড সেন্টার সংখ্যা বাড়িয়ে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে রাজ্য

ওই স্কিমিং ডিভাইসে অত্যাধুনিক ক্যামেরা থাকায় সমস্ত তথ্য সেখান থেকেই কপি হয়ে যাচ্ছে হ্যাকারদের কাছে। সেই তথ্যের ভিত্তিতেই নকল এটিএম কার্ড বানিয়ে ফেলছে হ্যাকাররা। কলকাতা পুলিশের বিশেষ টিম এসেছে এটিএম জালিয়াতির তদন্তের জন্য। এটিএম জালিয়াতি নিয়ে শনিবার থেকে একের পর এক অভিযোগ আসতে শুরু করে যাদবপুর থানায়। রবিবার মোট ১৪টি এটিএম জালিয়াতির অভিযোগ জমা পড়ে। সোমবার অন্তত ১০ থানায় এসেছেন অভিযোগ জানাতে।

পাভলভ হাসপাতালের ছাদে ঝুলন্ত অবস্থায় রোগীর দেহ উদ্ধার

প্রত্যেক ক্ষেত্রেই গ্রাহকরা অভিযোগ করেন, দিল্লির এটিএম থেকে তুলে নেওয়া হচ্ছে হাজার হাজার টাকা। সেই কারণে কলকাতা পুলিশের একটি বিশেষ টিম ইতিমধ্যেই দিল্লি রওনা দিয়েছে। সেখানে দিল্লি পুলিশের সঙ্গে যৌথভাবে তদন্ত করবে তারা। আপাতত পেট্রোলিং-এর মাধ্যমে শহরের এটিএমগুলিতে নজরদারি চালাচ্ছে কলকাতা পুলিশ।