Date : 2021-05-09

নদীতে ভেসে বেরানো সোনার তাল উদ্ধার, নীচেই রয়েছে সোনার খনি!…

ওয়েব ডেস্ক:- প্রাকৃতিক জলধারাতে মূল্যবান পাথর ও ধাতু পাওয়া সৌভাগ্যের বিষয়। এমন সৌভাগ্যের সন্ধান করেন ব্রিটেনের এক স্বর্ণশিকারি ডুবুরি। নদী ও সমুদ্রের তলদেশ থেকে মূল্যবান পাথর ও ধাতুর সন্ধান করে বেরান তিনি। স্কটল্যান্ডের একটি অনামী নদী থেকে ১২৩গ্রাম ওজনের একটি সোনার তাল খুঁজে পেলেন তিনি। মহামূল্যবান এই সোনার দাম ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ২ থেকে ৩ কোটি টাকা। স্কটল্যাণ্ডের অনামী এক নদী থেকে পাওয়া এই গুপ্তধনের ব্যাপারে বিশেষ কিছু বলতে চাননি মালিক। তবে নদীতে এমন সোনার তাল ভেসে যাওয়া দেখে স্কটল্যাণ্ডের ভূ-বিদদের একাংশ মনে করছেন ওই অঞ্চলে সোনার খনি থাকতে পারে।

সোনার সন্ধানে ওই নদীতে আবারও সন্ধান চালানো হতে পারে। ওই স্বর্ণশিকারি এক ব্রিটিশ ধাতু বিশেষজ্ঞকে জানিয়েছেন, ওই ব্যক্তি মাঝে মাঝেই ইংল‌্যান্ড, স্কটল‌্যান্ডের নানা অজানা নদীতে বহুমূল্যের পাথর খুঁজতেন। সঙ্গে থাকত একটি বিশেষ কিছু জিনিস পত্র। মূল্যবান পাথর দেখলেই নিয়ে নিতেন। সংগ্রহ করে রাখতেন নিজের কাছে। এই সোনার টুকরোগুলি কুড়িয়ে পাওয়ার সময়ও বুঝতে পারেননি ব্রিটেনের ইতিহাসে এত বড় সোনার তাল আগে কখনও উদ্ধার হয়নি। পাথর সংগ্রহ করে জলের উপরে উঠে আসার দু’দিন পর ব‌্যাগ খুলে বুঝতে পারেন, পাথর ভেবে কুড়িয়ে আনা সোনালি বস্তুটি আসলে ২২ ক‌্যারেটের নিখাদ সোনা।

আগামী ২০২২ সালের মধ্যে বিদেশি যন্ত্রাংশ ও সফটওয়্যার পাল্টানোর ভাবনা চিনের

নিউজিল্যান্ডে ভয়াবহ অগ্ন্যুৎপাত,দ্বীপ থেকে সরানো হল পর্যটকদের

প্রাপ্ত সোনার তাল দেখে ধাতু বিশেষজ্ঞদের মত, নদীর তলদেশে এমন আরও সোনার তাল থাকতে পারে। বড় পাথর অথবা হিমবাহের চাঁই এসে পড়ায় ভেঙে গিয়েছে সোনার তালটি, যদিও এর গুণাগুণের তেমন কিছু ক্ষতি হয়নি। অ্যাডভেঞ্চার প্রিয় ওই ব্রিটিশ ডুবুরি প্রথমে ৮৯.৪ কেজি ওজনের সোনার খণ্ডটি খুঁজে পান। এরপর ৩০ সেন্টিমিটার দূরে বাকি অংশটি পান তিনি। জানা গিয়েছে, স্কটল্যান্ডের জাতীয় মিউজিয়ামের পক্ষ থেকে ওই স্বর্ণখণ্ড দুটি কিনে নেওয়া হবে। এরপর গবেষণা করে জানা হবে কতটা প্রাচীন ওই স্বর্ণখণ্ডটি।