Date : 2020-04-08

ছড়িয়ে পড়ছে করোনা ভাইরাস, বিশ্ব জনস্বাস্থ্যের পক্ষে ‘বিপজ্জনক’ জানালো WHO

ওয়েব ডেস্ক: শীতের শেষ ইনিংসে ডেঙ্গির আতঙ্ক নিঃঝুম হয়ে পড়লেও ভয় দেখাতে শুরু করল আরও এক ভাইরাস। প্রতিবেশী দেশ চিনের বিস্তীর্ণ এলাকা জুড়ে রক্তচক্ষু দেখাচ্ছে করোনা ভাইরাস। যা সীমানা পেড়িয়ে ভারতেও হানা দিতে পারে বলে মনে করছেন চিকিৎসকরা। পশু-পাখিদের শরীর থেকে এই ভাইরাস বাসা বাঁধে মানুষের শরীরে।চিন থেকে অনেক মানুষই ভারতে আসেন। তাদের সঙ্গে যাতে এই ভাইরাস ভারতে প্রবেস করতে না পারে তার জন্য কলকাতা সহ দেশের সাতটি বিমানবন্দরে সতর্রতা জারি করেছে দেশের স্বাস্থ্য মন্ত্রক।চিন থেকে আসা যাত্রীদের থার্মাল স্ক্যানিং-এর মাধ্যমে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হচ্ছে। চিকিৎসদের মতে, একমাত্র রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমেই করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি জানা সম্ভব। এই মুহুর্তে দেশের মধ্যে একমাত্র পুনের নাইসেটে করোনা ভাইরাসের জন্য ব্লাড কালচার করা শুরু হয়েছে।

শীর্ণকায় শরীরে চিড়িয়াখানায় পশুরাজ, ভাইরাল ছবি

তবে সামান্য কিছু সতর্কতা পালন করলেই রোগের হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যেতে পারে।

করোনা ভাইরাসের উপসর্গ:

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের আলাদা করে কোন উপসর্গ দেখা যায় না। প্রাথমিক ভাবে রোগীর দেহে ইনফ্লুয়েঞ্জা, সর্দি-কাশির প্রভাব দেখা যায়। উর্ধ্ব শ্বাসযন্ত্রে সংক্রমণের প্রভাব দেখা যায়। ক্রমশ শ্বাসকষ্টে সঙ্গে বমি ও নিউমোনিয়ার লক্ষণ দেখা দিতে পারে। করোনা ভাইরাসের কোনও একটি নির্দিষ্ট উপসর্গের বদলে যেতেও পারে।

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ:

পশু-পাখিদের থেকেই করোনা ভাইরাস মানুষের শরীরে প্রবেশ করে। বিশেষত, উট, বিড়াল থেকে এই ভাইরাস মানুষের শরীরে আসে। করোনা ভাইরাস অত্যন্ত ছোঁয়াচে।

যেন হলিউডের ফিল্মের দৃশ্য! দাবানলের পর ধুলোর মেঘে ঢাকাল আকাশ

চিনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশনের এই রিপোর্ট প্রকাশিত হওয়ার পর করোনা ভাইরাস আক্রান্তদের ‘আইসোলেশন ওয়ার্ড’-এ রেখে চিকিৎসা করানোর কথা ভাবা হচ্ছে। কাজ করতে গিয়ে ইউহান মিউনিসিপ্যালিটির স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মীরা অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তাঁদের পরীক্ষা করেই গবেষকরা নিশ্চিত হয়েছেন যে সংস্পর্শ থেকেই ছড়িয়ে পড়ছে ভাইরাসটি। প্রাথমিকভাবে ইউহানের সামুদ্রিক খাবার থেকে ভাইরাসটি ছড়িয়েছিল। প্রাথমিক পর্যায় বেশ কিছু গবাদি পশুও আক্রান্ত হয়েছে। পরবর্তী সময়ে তাদের ডিম বা মাংস থেকে মানবশরীরে প্রবেশ করেছে জীবানুটি। চিনের বাইরে থাইল্যান্ডেও করোনা ভাইরাসে বেশ কয়েকজন আক্রান্ত হয়েছেন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পক্ষ থেকে গোটা বিশ্বকে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে।চিনা নববর্ষ উপলক্ষে সেখানে পাঠরত বা কর্মরত মানুষজনও নিজেদের দেশে ফেরেন। তাই তাঁদের শরীরে যদি করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ হয়ে থাকে, তাহলে সংশ্লিষ্ট দেশগুলিতেও তা ছড়িয়ে পড়ার প্রবল আশঙ্কা।