Date : 2020-09-26

হিন্দু মতে সাত পাঁকে বাধা পড়লেন দম্পতি, বিয়ে হল মসজিদে!

ওয়েব ডেস্ক: হিন্দু নিয়ম মেনেই চারহাত এক হয়েছে অঞ্জু ও শরতের। দক্ষিণের ঐতিহ্যবাহী পোশাকে, হিন্দু বিয়ের উপাচারে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হলেন তারা। কিন্তু বিবাহস্থান কোন মন্দির বা সুসজ্জিত মণ্ডপ নয়। কেরালার চেরুভাল্লি মুসলিম জামাত মসজিদ চত্বরে অঞ্জু আর শরতের হিন্দু বিয়ে দেখতে আবাক হয়ে ভিড় জমালেন নানান ধর্মের মানুষ। দেশ জুড়ে চলা ধর্মীয় অশান্তির মধ্যে মসজিদে হিন্দু বিয়ের এমন বিরল নজির গড়লেন নবদম্পতি। দেশের সাম্প্রদায়িক অশান্তির প্রেক্ষাপটে কেরালার মসজিদে হিন্দু দম্পতির বিয়ে সৃষ্টি করল এক অনন্য নজির।

শহরে ফের অঙ্গ প্রতিস্থাপন,সুজয়ের হার্ট, কিডনি, লিভারে বাঁচলেন ৪ জন

যে বিয়ের কথা সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে মুখ্যমন্ত্রী টুইট করলেন, ‘এটাই কেরালার একতার চিত্র’। বছর দুয়েক আগে স্বামী হারা হন বিন্দু। তিন সন্তানকে নিয়ে ভাড়া বাড়িতে দিন কাটাচ্ছিলেন বিন্দু। এক মেয়ে অঞ্জুর বিয়ে দেওয়ার পয়সা ছিল না তার কাছে। সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন প্রতিবেশী নিজামুদ্দিন আলুমুত্তিল। তিনি বিন্দুকে জামাত কমিটিতে সব জানানোর কথা বলেন।

মসজিদ কর্তৃপক্ষ হিন্দু মেয়ের বিয়েতে রাজি হবে কিনা এই নিয়ে ধন্দ ছিল বিস্তর। কিন্তু সব ভুলে জামাতের এক সদস্য বিন্দুর মেয়ের বিয়ের দায়িত্ব নেন। শুধু বিয়েই নয়, বিয়েতে আগত অতিথিদের জন্য প্রীতিভোজের আয়োজনও করা হয়। জুম্মাবারে মসজিদে নামাজ পড়তে আসা মুসলিমরাও সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন। বিয়ের অনুষ্ঠানের জন্য মসজিদ চত্বরেই টাঙানো হয়েছিল চাঁদোয়া।

শ্যুটআউটকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত মুর্শিদাবাদ

তার নীচে মালা বদল থেকে শুরু করে সব হিন্দু আচার-আচরণ মেনে বিয়ের অনুষ্ঠান চলে বেলা সাড়ে ১১টা থেকে সাড়ে ১২টা অবধি। আর তার পর প্রীতিভোজ। হিন্দু-মুসলিম নির্বিশেষে হাজার খানেক আমন্ত্রিত দক্ষিণী নিরামিষ পদ খান তৃপ্তিভরে, দু’হাত তুলে আশীর্বাদ করেন নবদম্পতিকে। মসজিদ কমিটির এই সাহায্যে অভিভূত নবদম্পতি। শুধু বিয়ের আয়োজন করা নয়, নববধূকে ১০টি স্বর্ণমুদ্রা এবং দু’লক্ষ টাকাও উপহার দিয়েছে মসজিদ কমিটি। রবিবারের অঞ্জু-শরতের বিয়ের ছবি পোস্ট বিজয়নের বার্তা, ‘কেরালা বরাবর ধর্মীয় সম্প্রীতির এমন নজিরই দেখিয়েছে। কেরালায় আমরা ঐক্যবদ্ধ ছিলাম, ঐক্যবদ্ধই থাকব।’