Date : 2020-01-20

জেগে উঠেছে ‘তাল’, সতর্কতা ফিলিপিন্সে….

ওয়েব ডেস্ক: জেগে উঠেছে ফিলিপিন্সের তাল আগ্নেয়গিরি। রাজধানী ম্যালিনায় রবিবার দিনভর সতর্কতা জারি করা হয়। সোমবার থেকেই বাতাসে বিপুল পরিমান ছাই উদগীরণ করতে থাকায় দক্ষিণ ম্যালিনার বিস্তীর্ণ অঞ্চল ছাইয়ের চাদরে ঢাকা পড়ে যায়। অগ্ন্যুৎপাত শুরু হওয়ার আগেই সংলগ্ন এলাকা থেকে সরিয়ে নেওয়া হয় বাসিন্দাদের। বন্ধ করে দেওয়া হয় এলাকার সমস্ত স্কুল, কলেজ। দক্ষিণ ম্যালিনা থেকে প্রায় ১৪ কিমি দূরে অবস্থিত এই আগ্নেয়গিরি। নিমেশে জ্বলন্ত জ্বালামুখ থেকে প্রচুর পরিমানে ছাই বেরিয়ে এসে রাজধানী ম্যালিনার আকাশ ঢেকে দেয়। ছাই মিশে বাতাস ভারী হয়ে শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যা দেখা দেয় দক্ষিণ ম্যালিনার বিস্তীর্ণ অঞ্চলে।

ফিলিপিন্স ইন্সটিটিউট অফ ভলকানো অ্যান্ড সিসমোলজি-এর তরফে সতর্কতা জারি করে বলা হয়েছে, আগামী কয়েক ঘন্টার মধ্যে বিষ্ফোরণ সহ অগ্ন্যুৎপাত ঘটাতে পারে তাল। আয়তনে বৃহৎ না হলেও ফিলিপিন্সের তাল বিশ্বের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর আগ্নেয়গিরি।

ছাই উদগীরণের কারণে বাতাসে দৃশ্যমানতা হারিয়েছে। ম্যালিনা আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে বিমান চলাচল স্থগিত রাখা হয়েছে। এমনকি স্টক এক্সচেঞ্জের সমস্ত লেনদেন বন্ধ রাখা হয়েছে।

আগ্নেয়গিরি সংলগ্ন ১৪ কিমি অঞ্চল সম্পূর্ণ ছাইতে ঢেকে গিয়েছে। প্রায় সাড়ে চার লক্ষ মানুষকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ঘন্টায় প্রায় ৬০ কিমি বেগে আগ্নেয়গিরিটি ছাই পাথর ছুঁড়ে ফেলতে শুরু করেছে। তবে এখনও গ্যাস না বের হওয়ায় ভয়ানক পর্যায় পৌঁছায়নি অগ্ন্যুৎপাত।

ইউক্রেনের বিমান ধ্বংস করেছে ইরান, চাঞ্চল্যকর ভিডিও প্রকাশের পর স্বীকার ইরানের

ফিলিপিন্সের তরফে অগ্ন্যুৎপাতজনিত সতর্কতার মাত্রা ৩ থেকে বাড়িয়ে ৪ এ উন্নিত করেছে ফিলিপিন্স প্রশাসন। আগামী কয়েক ঘণ্টা বা কয়েকদিনের মধ্যে বিপজ্জনক অগ্ন্যুৎপাত হতে পারে বলে সতর্ক করা হয়েছে বাসিন্দাদের।

জল খাওয়া বন্ধ করতে ১০ হাজার উটকে গুলি করা হবে অস্ট্রেলিয়ায়!

অগ্ন্যুৎপাতের পর ‘সুনামি’ দেখা দিতে পারে বলেও সতর্ক করেছে কর্তৃপক্ষ। রবিবার আগ্নেয়গিরিটি থেকে বড় ধরনের একটি ছাইয়ের কুণ্ডুলি নিগর্ত হয়। এ সময় গর্জনের আওয়াজে মাটি কেঁপে ওঠে। বেশ কিছুক্ষণ স্থায়ী হয় ভূমিকম্প। বিশেষ সূত্রের খবর, এখনও পর্যন্ত ম্যালিনায় মোট ৭৫টি ভূমিকম্প হয়েছে। তাল ফিলিপিন্সের সবচেয়ে সক্রিয় দ্বিতীয় আগ্নেয়গিরি। সমুদ্র সংলগ্ন হ্রদের মাঝে একটি দ্বীপের মধ্যে আগ্নেয়গিরিটির অবস্থান। এটি বিশ্বের সবচেয়ে ছোট আগ্নেয়গিরিগুলোর মধ্যে অন্যতম। গত সাড়ে চারশো বছরে এই আগ্নেয়গিরিটি থেকে অন্তত ৩৪ বার অগ্ন্যুৎপাত হয়ে এই সৃষ্টি হয়েছিল।