Date : 2020-01-24

ভারতীয় নাগরিকের মুণ্ড কেটে নিল পাক রেঞ্জার্স

ওয়েব ডেস্ক : মুরগির মতো ভারতের নাগরিকদের মুণ্ড কেটে নেওয়ার বিকার যে পাক রেঞ্জারদের মজ্জাগত, তা আবারও প্রমাণ হয়ে গেল। দুদিন আগে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় (লাইন অফ অ্যাকচুয়াল কনট্রোল) দুই সাধারণ ভারতীয় নাগরিক পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর বর্ডার অ্যাকশন টিমের গুলিতে নিহত হন। ঘটনাটি ঘটে পুঞ্চে। একজনের নাম মহম্মদ আসলাম, আর একজন আলতাফ হুসেন। আরও দুজন মারাত্মক ভাবে জখম হন। সোমবার সরকারি সূত্রে জানা গিয়েছে, নিহতদের মধ্যে একজনের মাথা কেটে নিয়ে চলে গিয়েছে পাক রেঞ্জাররা।

আরও পড়ুন :গঙ্গাসাগরে পুণ্যার্থীদের সুরক্ষায় বিশেষ ডুবুরি বাহিনী

ভারতীয় সেনাবাহিনী জানিয়েছে, শুক্রবার প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় পাকিস্তানি আর্মির গুলিতে দুই অসামরিক ব্যক্তি নিহত হন। চাষের কাজে তাঁরা সীমান্তে তারের বেড়া পেরিয়েছিলেন। কিন্তু ভারতীয় এলাকার মধ্যেই ছিলেন। এ রকম মোট পাঁচ ভারতীয় কৃষিজীবী-পশুপালকের উপর কোনও হুঁশিয়ারি না-দিয়েই গুলি চালায় পাকিস্তানি উর্দিধারীরা। যেটা তারা আগেও করেছে। শুক্রবারের ওই ঘটনার পর নিহতদের একজনের মাথাও তারা কেটে নিয়ে গিয়েছে।

আরও পড়ুন : সন্ত্রাসবাদীদের সঙ্গেই রাষ্ট্রপতি পদকপ্রাপ্তের জেরা চলছে

বছর কয়েক আগে, ভারতীয় সেনাবাহিনীর এক অফিসার এবং এক জওয়ানের মাথা এভাবেই পাক রেঞ্জাররা কেটে নিয়ে গিয়েছিল। এবার তারা অসামরিক ভারতীয় নাগরিককেও ছাড়ল না।

দুদিন আগে, সামরিক বাহিনীর তিনজন পোর্টারকে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় পাকিস্তানি সামরিক বাহিনী গুলি করে মারে। গত মাসেও তাদের গুলিতে সামরিক বাহিনীর একাধিক পোর্টার নিহত হন।

আরও পড়ুন : সরস্বতী পুজোর দিন পরীক্ষা নয়, কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়কে নির্দেশ উচ্চশিক্ষা দফতরের

এই ধরনের একের পর এক ঘটনার পাশাপাশি গাড়োয়াল রাইফেলসের এক ফৌজিও নিখোঁজ। তিনি গুলমার্গে কর্তব্যরত ছিলেন। গত ৮ জানুয়ারি বরফঢাকা পাহাড়ি পথে টহল দিতে বেরিয়ে আর বেসে ফিরে আসেননি। ভারতীয় সেনা সূত্রে জানা গিয়েছে, এই ফৌজির নাম রাজেন্দ্র সিং নেগি। চামোলি-র সন্তান নেগি-র স্ত্রী রাজেশ্বরী দেবী টাইমস নিউজ নেটওয়ার্ককে এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন, প্রতিদিন টহল দিয়ে বেসে ফিরে তিনি বাড়িতে একবার ফোন করতেন। কিন্তু আট তারিখে নেগি নিখোঁজ বলে ফোন আসে। নেগির তিন নাবালক সন্তান রয়েছে। রাজেশ্বরী দেবী তিন সন্তান নিয়ে দেরাদুনে বাস করেন। আর্মির নিয়ম অনুযায়ী পুলিশ চামোলিতে একটি মিসিং ডায়েরি করেছে।