Date : 2024-05-26

অভিষেকের কপ্টারে সোনা ! তদন্তে মরিয়া আইটি

ঋক পুরকায়স্থ, সাংবাদিক: লোকসভা নির্বাচনে উত্তরবঙ্গ থেকে দক্ষিণবঙ্গ নির্বাচনী প্রচারের জন্য বিভিন্ন জায়গায় যাচ্ছেন তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দোপাধ্যায়। যাত্রাপথের তাঁর অন্যতম সফরসঙ্গী হেলিকপ্টার। নববর্ষের দিন রবিবার দুপুরে হঠাৎ আইটি আধিকারিকদের একটি দল যান বেহালা ফ্লাইং ক্লাবে। সেখানে রাখা ছিল অভিষেক বন্দোপাধ্যায়ের চপার। তার কিছুক্ষণের মধ্যেই সেই চপারটি ট্রায়াল রানের জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছিল। আইটি আধিকারিকরা বেহালা ফ্লাইং ক্লাবে পৌঁছে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এর চপার তল্লাশি করেন। চপারের মধ্যে থাকা ব্যাগ কাগজপত্র অন্যান্য নথি সমস্ত তারা খতিয়ে দেখেন। এবং শেষ পর্যন্ত কিছু না পাওয়া খালি হাতে সেখান থেকে চলে যান।

তৃণমূল কংগ্রেসের তরফ থেকে যে অভিযোগ বারবার তোলা হচ্ছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থাকে বিজেপি নির্বাচনী স্বার্থে ব্যবহার করছে। আর তারই ফলস্বরূপ গতকাল অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এর চপারে আইটি হানা। অভিষেকের দেহরক্ষীরা বেহালা ফ্লাইং ক্লাবের উপস্থিত থাকায় তারা পুরো ঘটনাটি ক্যামেরা বন্দী করে। কিন্তু আইটি আধিকারিকরা জোর করে সেই ভিডিও ডিলিট করান তাদের ফোন থেকে এমনটা অভিযোগ করছে তৃণমূল কংগ্রেস। হেলিকপ্টারটির ট্রায়াল রানো ক্যানসেল করা হয়।

তারপরেও মঙ্গলবার সাংগঠনিক বৈঠকে তমলুকে যান অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। একদিকে প্রাক্তন বিচারপতি ও বর্তমান বিজেপি নেতা অভিজিৎ গাঙ্গুলী এবং তার বিপক্ষে তৃণমূলের সোশ্যাল মিডিয়া ও আইটি ইনচার্জ দেবাংশু ভট্টাচার্য। দেবাংশুর সমর্থনে সাংগঠনিক বৈঠকে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় আইটি নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও চপার নিয়ে হলদিয়াতে যান। তবে দুপুর বারোটা নাগাদ বেহালা ফ্লাইং ক্লাবে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় তমলুকের উদ্দেশ্যে রওনা দেওয়ার সময় উপস্থিত ছিলেন নির্বাচন কমিশনের তিনজন প্রতিনিধি। তমলুকে নির্বাচনী বৈঠকের পরে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় তার হেলিকপ্টারে আইটি রেইড সংক্রান্ত বিষয়ে বলেন যে তিনি এই বিষয়ে আইনত পদক্ষেপ নেবেন। বাদ রইলেন না তৃণমূল সুপ্রিম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কোচবিহারের সভা থেকে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “অভিষেকের চপারে নাকি টাকা সোনা রয়েছে আমরা ওসব নিয়ে ঘুরিনা, ওটা বিজেপি করে। আমাদের কিছুর প্রয়োজন পড়লে মায়ের কাছে আঁচল পেতে দাঁড়াবো।” তবে বারে বারে বিজেপির বিরুদ্ধে যে অভিযোগ তোলা হচ্ছে তা মানতে নারাজ তারা। কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা যে নিরপেক্ষতার সাথে কাজ করছে সে ব্যাপারে তারা একেবারে নিশ্চিত।