Date : 2022-10-06

জোড়া এনকাউন্টারে নিকেশ ৫ জঙ্গি

তথাগত চ্যাটার্জি, নিউজ ডেস্ক : নতুন বছরের প্রথম মাসের শেষে কাশ্মীর উপত্যকায় সেনা-জঙ্গির গুলির লড়াই। তাতেই বড়সড় সাফল্য পেল ভারতীয় সেনা ও যৌথ বাহিনী। জানা গিয়েছে জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামা ও বদগাঁওয়ে জোড়া এনকাউন্টারে নামে ভারতীয় সেনা। চলে বিপক্ষের পাল্টা গুলিও। তাতেই পাঁচজন জেহাদিকে খতম করা হয়। সূত্রের খবর ওই পাঁচ জঙ্গির মধ্যে একজন জইশ-ই-মহম্মদ সংগঠনের সঙ্গে জড়িত ছিল বলে জানা গিয়েছে। জঙ্গি নিধনের এই অভিযানকে ভারতীয় সেনার তরফ থেকে বড় সাফল্য বলে আখ্যা দেওয়া হয়েছে। মৃত জইশ জেহাদির নাম জাহিদ ওয়ানি। সে জইশ সংগঠনের কম্যান্ডার ছিল বলে জানা গিয়েছে। জানা গিয়েছে জাহিদ এর আগেও বড়সড় জঙ্গি নাশকতামূলক কাজের সঙ্গে জড়িত ছিল। লেতপুরা বিস্ফোরণে মৃত্যু হয়েছিল প্রায় চল্লিশ জন সিআরপিএফ জওয়ানের। এই কাণ্ডের পরেই জাহিদকে খুঁজছিল পুলিশ।

এই এনকাউন্টারের ব্যাপারে সেনার তরফে আরও জানা গিয়েছে শনিবার থেকেই সেনা-জেহাদিদের মধ্যে গোলাগুলি শুরু হয়। প্রায় বারো ঘণ্টা ধরে গোলাগুলি চলতে থাকে সেনা ও পুলিশের মধ্যে। এছাড়াও জানা গিয়েছে মৃত জঙ্গিদের মধ্যে চারজন ছিল অন্যতম কুখ্যাত জঙ্গি সংগঠন লস্কর-ই-তৈবার সন্ত্রাসবাদী। নিকেশ হওয়া জঙ্গিদের কাছ থেকে প্রচুর পরিমাণে আগ্নেয়াস্ত্র পাওয়া গিয়েছে বলে জানা গিয়েছে। পাশাপাশি উদ্ধার হয়েছে একাধিক নথিপত্রও। নতুন বছরে কাশ্মীর উপত্যকায় থেমে নেই সেনা সন্ত্রাসবাদীদের গুলির লড়াই। সূত্র মারফত জানা গিয়েছে এই নিয়ে কমপক্ষে উনিশজন সন্ত্রাসবাদীকে এনকাউন্টারে খতম করেছে ভারতীয় সেনা ও যৌথ বাহিনী। ২০২১ সাল থেকেই জম্মু-কাশ্মীর উপত্যকায় জঙ্গি নিধনে নামে ভারতীয় সেনা। জঙ্গি সন্দেহে বহু স্থানীয় কিশোর ও যুবককে আটক করে চলে জিজ্ঞাসাবাদ। এছাড়াও গত বছরে বিপুল সংখ্যক সন্ত্রাসবাদীকে নিকেশ করা হয়েছিল কাশ্মীর সীমান্তে। দফায় দফায় এনকাউন্টার চলে কুলগাম, নওশেরা, কুলগাম, বদগাঁও-সহ একাধিক এলাকায়। বেশকিছু এনকাউন্টারে ভারতীয় সেনা ও পুলিশও শহিদ হন। এরপরেও হাল না ছেড়ে পাক মদতপুষ্ট জঙ্গিদের ঘাঁটি শেষ করতে লাগাতার এনকাউন্টার চালিয়ে গিয়েছে ভারতীয় সেনা। তারই সাফল্য হিসেবে পাঁচ জঙ্গিকে নিকেশ করা হল।