Date : 2022-05-28

“কমিশনে আস্থা নেই, কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশনে যাবো।” বললেন বিজেপি নেত্রী ভারতী ঘোষ

সঞ্জু সুর, সাংবাদিকঃ রাজ্যের দুই কেন্দ্রের উপনির্বাচনে কমিশনের ভূমিকায় খুশি নয় রাজ্যের প্রধান বিরোধী দল বিজেপি। নির্বাচনী প্রক্রিয়া শেষ হলে পরিস্তিতি পর্যালোচনা করে কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশন কে চিঠি দেবে রাজ্য বিজেপি, জানালেন বিজেপি নেত্রী ভারতী ঘোষ।

মঙ্গলবার বিকেল ৪টে নাগাদ মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিকের দফতরে আসে বিজেপি-র এক প্রতিনিধি দল। ভারতী ঘোষের নেতৃত্বে দুই সদস্যের প্রতিনিধি দলে ছিলেন আইনজীবী লোকনাথ চট্টোপাধ্যায়। এদিন ভারতী ঘোষ জানান যে বিজেপির পক্ষ থেকে এই মুহূর্তে রিপোলের দাবি না জানানো হলেও পরবর্তী সময়ে চিঠিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য ও সেইমতো পদক্ষেপ গ্রহণ করার দাবি জানানো হবে কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশনের দিল্লির অফিসে। ভারতী ঘোষের দাবি ২০১৯ সালে যেভাবে ভোট করেছিলো তৃণমূল কংগ্রেস সেই একই ভাবে পরম্পরাগত ভাবে তৃণমূলের গুন্ডা বাহিনী কে রাস্তায় নামিয়েছেন তারা।

যেভাবে আসানসোলের বিজেপি প্রার্থী অগ্নিমিত্রা পল-এর উপরে আক্রমণ করা হয়েছে, সেই বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহণ করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করার দাবি জানিয়েছেন তিনি। এছাড়া এদিন ভোট পরবর্তী হিংসার আশংকা প্রকাশ করে এই দুই কেন্দ্রে যাবতীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার দাবিও জানায় বিজেপি প্রতিনিধি দল। ভারতী ঘোষের অভিযোগ, ২০২১ সালে ২ মে থেকে ৫ মে পর্যন্ত যে ভাবে হিংসা শিকার হয়েছেন বিজেপির কর্মীরা, ঠিক একই ভাবে এই নির্বাচনের পরেও হিংসার ঘটনা ঘটতে পারে। এদিন ভারতী ঘোষ আরও বলেন যে ভাবে উত্তর প্রদেশ বা উত্তরাখণ্ড সহ বিজেপি শাসিত রাজ্যে শান্তিপূর্ন ভাবে নির্বাচন হয়, সেই ভাবে বাংলায় নির্বাচন হতে পারে না। আজকে যে ভাবে বিভিন্ন জায়গায় রাজ্য পুলিশ এবং কলকাতা পুলিশকে ভোট কেন্দ্রের মধ্যে দেখা গেছে, সেটা প্রমাণ করছে যে নির্বাচন কতটা অবাধ হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন জায়গা থেকে ছাপ্পা ভোটের খবর উঠে এসেছে বলেও দাবি করলেন বিজেপি নেত্রী ভারতী ঘোষ।

এদিকে দুই কেন্দ্রের উপনির্বাচন মোটের উপর শান্তিপূর্ণ হয়েছে বলেই মত নির্বাচন কমিশনের। দু’একটি ছোটোখাটো ঘটনা ঘটলেও সঙ্গে সঙ্গেই কমিশন ব্যবস্থা নিয়েছে। নির্বাচন কমিশন সূত্রে খবর, বিকাল পাঁচটা পর্যন্ত বালিগঞ্জ কেন্দ্রে ৪১.১০ শতাংশ ও আসানসোল কেন্দ্রে ৬৪.০৩ শতাংশ ভোট পড়েছে। যদিও ২০২১ সালে বালিগঞ্জ কেন্দ্রে ভোটের হার ছিলো ৬০.৯৬ শতাংশ ও ২০১৯ সালে আসানসোলে ভোটের হার ছিলো ৭৬.৬১ শতাংশ। সেই তুলনায় মঙ্গলবারের উপনির্বাচনে ভোটের হার দুই কেন্দ্রেই যথেষ্ট কম।