Date : 2020-09-30

বিড়ালছানার গায়ে গরম কফি ঢেলে দিলেন এক ব্যক্তি, তারপর….

ওয়েব ডেস্ক: কানাডা জুড়ে চলছে তীব্র শৈত্যপ্রবাহ। মানুষ থেকে শুরু করে পশু-পাখি তীব্র ঠান্ডায় জমে যাওয়ার অবস্থা সবার। বরফের পুরু চাদরে ঢাকা পড়েছে কানাডার সমস্ত রাস্তাঘাট। প্রচণ্ড শীতে পথের ধারে কুঁকড়ে পরস্পরের গা ঘেঁষে পড়েছিল তিনটি বিড়াল ছানা। বরফে প্রায় জমে গিয়েছিল তারা। কিছুক্ষণের মধ্যে মরে যেত। এমন সময় তাদের দেখতে পেলেন কেন্ডাল ডিউইচ নামে এক ব্যক্তি। তিনি আলবের্তায় টোমাহক অঞ্চলে তৈলকূপ পরিদর্শনে গিয়েছিলেন। বিড়ালছানাগুলো যাতে না মরে যায়, সেজন্য তৎপর হলেন তিনি। কানাডার একটি সংবাদ পত্র সূত্রে খবর, গত ২২ জানুয়ারি কোন্ডাল দেখতে পান তিনটি বিড়াল ছানা পাশাপাশি শুয়ে কাঁপছে। গায়ের উপর বরফের আস্তরণ জমতে থাকায় বিড়ালছানাগুলো একটা আর একটার সঙ্গে আটকে গিয়েছিল। আর কিছুক্ষণ ওই অবস্থায় পড়ে থাকলে বিড়ালছানাগুলো যে বাঁচবে না সেটা টের পেয়েছিল কেন্ডাল।

সৌজন্যে ফেসবুক

কলকাতায় করোনার ছায়া! জ্বর নিয়ে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে ভর্তি ১

হাতের কাছে এমন কোন উপায় ছিল না যে বিড়ালছানাগুলোকে উদ্ধার করবে কেন্ডাল। রাস্তার ধারে ট্রাক দাঁড় করিয়ে এসেছিলেন তিনি। ট্রাকের মধ্যে ছিল শুধু এক কাপ গরম কফি। উপায় না পেয়ে সেটাই ঢেলে দিলেন বিড়ালছানাগুলোর গায়ে। সঙ্গে সঙ্গে গলতে শুরু করল বিড়ালছানাগুলির শরীরের বরফ। এই পুরো ঘটনার একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেন কেন্ডাল। ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে, প্রচণ্ড শীতের মধ্যে একটু উষ্ণতার ছোঁয়া পেয়ে উচ্ছসিত বিড়ালছানাগুলো।

ভিডিওতে গরম কফি গায়ে পড়তেই চেটে পুটে সাফ করতে দেখা গেছে বিড়ালগুলোকে। পড়ে নিজের পোস্ট আপডেট করে তিনি জানান, তিনটে বিড়ালছানাকে তিনি দত্তক নিয়েছেন। তিনি পোস্টে লিখেছেন, “তিনটে ছোট্ট রাসকেল আজ তাদের নতুন বাড়িতে গেল। সেখানে তারা একসঙ্গেই থাকবে। তারা দিব্যি পানভোজন করেছে। তাদের মধ্যে ফিরে এসেছে এনার্জি”।