Date : 2022-06-30

বিশৃঙ্খলা করা ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির পিছনে থাকা কাউকে রেয়াত নয়। নবান্নে জানালেন জাভেদ শামিম।

সঞ্জু সুর, সাংবাদিক : ছাড় নয় কাউকেই। গত চারদিন ধরে হাওড়া সহ রাজ্যের বেশকিছু এলাকায় যে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি তৈরি করা ও হিংসাত্মক ঘটনা ঘটানো হয়েছে তাদের কাউকেউ রেয়াত করা হবে না। সোমবার বেলায় নবান্নে সাংবাদিক সম্মেলন করে জানালেন রাজ্যের এডিজি আইন-শৃঙ্খলা জাভেদ শামিম।

নবীর প্রতি অবমাননাকর মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার হাওড়ার বিভিন্ন জায়গায় অবরোধ শুরু হয়। তার রেশ চলে পরবর্তী তিনদিন ধরে। রাস্তা অবরোধ থেকে শুরু করে বিক্ষোভ হিংসাত্মক অবস্থায় পৌঁছায়। বাড়ি, দোকান ভাঙচুর, আগুন লাগানো, থানা সহ সরকারি অফিসে ভাঙচুরের ঘটনায় এখনো পর্যন্ত মোট ৪২ টা কেস করা হয়েছে ও ২০০ জনের বেশি দুষ্কৃতকারীকে গ্রেফতার বলে সোমবার জানান জাভেদ শামিম। এদিন তিনি জানান, “পরিস্থিতি সম্পূর্ণ স্বাভাবিক। গত ৪৮ ঘন্টায় হাওড়াতে আর নতুন করে কোনো ঘটনা ঘটেনি। নদিয়ার নাকাশিপাড়ায় অবশ্য রবিবার একটা ঘটনা ঘটেছে। সেই ঘটনায় ইতিমধ্যেই ২৫ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।” এডিজি আইন-শৃঙ্খলা আরো জানান, “এখনো পর্যন্ত যাদের গ্রেফতার করা হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে এমনভাবে চার্জশিট তৈরি করা হচ্ছে যাতে তাদের কঠোর থেকে কঠোর সাজা হয়।

পাশাপাশি এইসব ঘটনার পিছনে যে বা যারা জড়িত তাদের আমরা খুঁজে বার করবোই।” যারা প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে এইসব বিশৃঙ্খলার সঙ্গে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে কঠোর থেকে কঠোরতম ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন জাভেদ শামিম। অবস্থা স্বাভাবিক হ‌ওয়ার কারণে আজ সকাল থেকে ইন্টারনেট পরিষেবা ফের চালু করা হয়েছে বলে জানিয়ে তিনি বলেন, “ইন্টারনেট পরিষেবা চালু করা হলেও এখন‌ই ১৪৪ ধারা প্রত্যাহার করা হচ্ছে না। অবস্থা খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।” নূপুর শর্মার মন্তব্যের প্রায় আট দিন পর রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় এই ধরনের ঘটনা ঘটলো। এক্ষেত্রে পুলিশের গোয়েন্দা তথ্য পাওয়ার ক্ষেত্রে কোনো ব্যর্থতা ছিলো কিনা এই প্রশ্নের উত্তরে জাভেদ শামিম জানান, “এটা শুধু বাংলাতেই হয় নি। সারা দেশেই ওই সময় হয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় ওই মন্তব্য ভাইরাল হ‌ওয়ার পর বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষোভ শুরু হয়।” জাভেদ শামিমের আরো দাবি, শুধু হাওড়া পুলিশ কমিশনারেট এলাকায় ১৭ টা ও হাওড়া গ্রামীণ জেলা পুলিশের আওতাধীন এলাকায় ৯ টা কেস দাখিল করা হয়েছে। মূর্শিদাবাদ ও নদিয়ার কয়েকটি এলাকাতেও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারিদের গ্রেফতার করা হয়েছে। তাঁর আরও দাবি, পুলিশ প্রশাসনের উচ্চপদস্থ আধিকারিকরা সকলেই রাস্তায় থেকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছেন।