Date : 2020-10-27

ইচ্ছা থাকলেই ইচ্ছাপূরণ হয়…

উত্তর ২৪ পরগনা: ‘অন্ধজনকে দেহ আলো, মৃতজনকে দেহ প্রাণ’! কবিগুরুর এই গানের লাইন দিয়ে কেন প্রতিবেদনটি শুরু করা হল তা হয়তো আপনি বুঝতে পারছেন না। আসলে আজ কোনও ক্লাব বা কমিটি বা শিবিরের কথা বলা হবে না। একেবারে সাধারণ একটি পরিবার। আর ঠিক ততটাই অসাধারণ তাদের চিন্তা-ভাবনা। কেবলমাত্র কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের এই গানের লাইন মাথায় রেখে মানুষের পাশে থাকার চেষ্টা করে উত্তর চব্বিশ পরগনার ঠাকুরনগরের দেবনাথ পরিবারের সদস্যরা। এক কথায় বলতে গেলে, গানের লাইনটি দেবনাথ পরিবারের কাছে একটা ইন্সপিরেশন।

আরও পড়ুন… https://rplus.in/2019/01/11/deaf-and-dump-student-attempt-suicide/

যারা চোখে ঠিক ভাবে দেখতে পায় না, কিন্তু যাদের মধ্যে রয়েছে আপনার আমার থেকেও বেশি অদম্য ইচ্ছাশক্তি। আর তার মাধ্যমে গোটা দুনিয়া জয় করে চলেছে। তবে কোথাও যেন আজও একটা পলস্তরের আবরণে ঢেকে রয়েছে তারা। তাদের সব ইচ্ছা পূরণ হয় না। আর তাই, ঠাকুরনগরের দেবনাথ পরিবার এই ধরনের মানুষদের জন্য একটি চড়ুইভাতির আয়োজন করে। যেখানে ১২০ জন দৃষ্টিহীন মানুষদের একেবারে স্বাভাবিক ছন্দের একটি চড়ুইভাতি উপহার দেয় দেবনাথ পরিবার। সকাল থেকে খাওয়া-দাওয়ার পাশাপাশি চলে গানবাজনা, কবিতা পাঠ।

আরও পড়ুন… https://rplus.in/2019/01/11/mamata-at-barasat/

এরপর মধ্যাহ্নভোজনের পালা শেষ হলে তাদের হাতে তুলে দেওয়া হয় কম্বল। অবশেষে অনুষ্ঠান শেষে তাদের পৌঁছে দেওয়ারও ব্যবস্থা করে এই পরিবার। কেবল ঠাকুরনগরের দৃষ্টিহীনরাই নয়, বারুইপুর, বেলঘড়িয়া থেকেও অনেকে এই চড়ুইভাতিতে অঁশ নেয়। এদিন পরিবারের তরফে আতিথিয়তার কোনও খামতি রাখা হয়নি। দূর-দূরান্ত থেকে আগত অন্ধ ভিখারি, বৃদ্ধ-বৃদ্ধা থেকে ছাত্রছাত্রী সকলে খুশি দেবনাথ পরিবারের এই কাজে। পাশাপাশি এমন অভিনব উদ্যোগের জন্য খুশি পরিবারের সদস্য ও প্রতিবেশিরাও।