Date : 2020-10-26

লোন পাওয়ার আশায় প্রতারিত দম্পতি

উত্তর ২৪ পরগনা: লোন পাইয়ে দেওয়ার নাম করে প্রতিবেশী যুবকের কাছে প্রতারিত দম্পতি। ঘটনাটি ঘটেছে অশোকনগর থানার অন্তর্গত মানিকতলা অঞ্চলে। প্রতারিত উত্তম মন্ডল পেশায় মৎস্য ব্যবসায়ী। উত্তম মন্ডল ও তার স্ত্রী কনিকা মন্ডলের অভিযোগ, প্রতিবেশী যুবক বিশ্বনাথ সরকার লোন পাইয়ে দেওয়ার নাম করে ব্যাঙ্ক থেকে ৪০ হাজার টাকা তুলে নেয়। বিশ্বনাথের কথা মতো উত্তম মন্ডল ব্যাঙ্কের সমস্থ নথিপত্র তুলে দেয়। এমনকি এটিএম কার্ডের ছবিও নিয়ে যায় বিশ্বনাথ। এরপর বিশ্বনাথ তাদের ব্যাঙ্কে ৬০ হাজার টাকা রাখার প্রস্তাব দেয়। সেই মুহুর্তে উত্তমবাবুর কাছে টাকা না থাকায় সে ধার করে ৪০ হাজার টাকা ব্যাঙ্কে জমা করে। রাতে টাকা জমা পড়ে যাওয়ার আগেই অগ্রিম ২০ হাজার টাকার চেক লিখিয়ে নেয় বিশ্বনাথ। অভিজ্ঞতার অভাবে উত্তম মন্ডল চেক সই করে শুধুমাত্র ২০ হাজার টাকা লিখে চেকটি তুলে দেয় বিশ্বনাথের হাতে। এরপর সোমবার রাতেই উত্তমের মোবাইলে এসএমএস আসে তার ব্যাঙ্ক থেকে তুলে নেওয়া হয়েছে ৪০ হাজার টাকা। এই ঘটনার পর ওই মৎস্য ব্যবসায়ী বিশ্বনাথকে ফোন করলে সে ৪০ হাজার টাকার তুলে নেওয়ার কথা কবুল করে। এবং উত্তমবাবুর দেওয়া ২০ হাজার টাকার চেকটি দেখিয়ে বিশ্বনাথ ২ লক্ষ টাকা দাবি করে। উত্তমবাবু এই ঘটনার পর মঙ্গলবার আশোকনগর থানায় প্রতারনার অভিযোগ দায়ের করেন প্রতিবেশী বিশ্বনাথ সরকারের বিরুদ্ধে। ব্যাঙ্ক থেকে টাকা তোলা সম্পর্কে অভিজ্ঞতার অভাবেই এমন ঘটনা ঘটেছে বলে অনুমান পুলিশের তরফে। ঘটনার তদন্তে নেমেছে অশোকনগর থানার পুলিশ।