Date : 2019-05-27

Breaking
কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকে ব্যর্থতার দায় স্বীকার করে পদত্যাগের ইচ্ছাপ্রকাশ রাহুলের। গৃহীত হল না ইস্তফা। রাহুলেই ভরসা কংগ্রেসের। বৈঠকে সংগঠন ঢেলে সাজানোর পরিকল্পনা।
সাম্প্রদায়িক হিংসা ছড়িয়ে জিতেছে বিজেপি। নির্বাচন কমিশন ওদের হয়ে কাজ করেছে। কালীঘাটে বৈঠক শেষে বললেন মুখ্যমন্ত্রী।
পদে থেকেও গত কয়েক মাসে কাজ করতে পারিনি। সেই জন্য মুখ্যমন্ত্রীত্ব ছাড়তে চেয়েছিলাম। দল চায়নি তাই পদত্যাগ করিনি। কালীঘাটে সাংবাদিক বৈঠকে বললেন মুখ্যমন্ত্রী।
ভোটের ফল পর্যালোচনায় কালীঘাটে বৈঠক মুখ্যমন্ত্রীর। আসন কমলেও ভোট বেড়েছে বলে দাবি করেন তিনি। আগামীদিনে এক হয়ে লড়াই করার বার্তা দলীয় কর্মীদের।
আজই সরকার গঠনের দাবি রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন নরেন্দ্র মোদী। রাজ্য থেকে বেশ কয়েকজনের মন্ত্রী হওয়ার সম্ভাবনা।
সর্বসম্মতিতে এনডিএ নেতা নির্বাচিত হলেন নরেন্দ্র মোদী। সংসদের সেন্ট্রল হলে পুষ্পস্তবক দিয়ে মোদীকে অভিবাদন। সাক্ষী থাকলেন রাজ্য জয়ী বিজেপি সাংসদরাও।
দেগঙ্গায় তৃণমূল কর্মীদের জোর করে জয় শ্রী রাম বলানোয় সংঘর্ষ বিজেপি-তৃণমূলের। সংঘর্ষে আহত দুইপক্ষের প্রায় ১২ জন। ভাঙচুর করা হয় একাধিক বাড়ি। এলাকায় জারি ১৪৪ ধারা, মোতায়েন বাহিনী।
সম্ভবত ৩০শে মে-ই ফের প্রধানমন্ত্রী পদে শপথ নেবেন মোদী। বিকেল ৪টে থেকে ৫টার মধ্যে রাষ্ট্রপতি ভবনে শপথ। তার আগে ২৮ তারিখ বারাণসীতে মোদীর রোড শো।
দলে থেকেও দলকে হেয় করার অভিযোগ। মুকুল পুত্র শুভ্রাংশু রায়কে ৬ বছরের জন্য সাসপেন্ড করল তৃণমূল। মুখ্যমন্ত্রীর অনুমোদন নিয়েই সাসপেন্ড। বললেন পার্থ।

রাত পোহালে ষষ্ঠ দফা নির্বাচন, তৈরি কেন্দ্রীয় বাহিনী

ওয়েব ডেস্ক: রাত পোহালে ষষ্ঠ দফা নির্বাচন। কাল মোট ৮ টি কেন্দ্রে লোকসভা নির্বাচন হবে। ১০০ শতাংশ বুথে বাহিনী থাকা সত্ত্বেও বেলা গড়াতেই পঞ্চম দফা নির্বাচনে একের পর এক অশান্তির খবর আসতে থাকে। বিশেষ করে স্পর্শকাতর হিসাবে প্রথম থেকেই যে সমস্ত বুথ অশান্তির কেন্দ্রবিন্দুতে থাকতে পারে বলে মনে করছিল প্রশাসন ও রাজনৈতিক মহল, সেই সব বুথেই সকাল থেকে গণ্ডগোলের ছবি উঠে আসতে থাকে। পঞ্চম দফা ভোট একশ শতাংশ বাহিনী দিয়েও সম্পূর্ণ শান্তিপূর্ণ হয়নি বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

বিভিন্ন জায়গায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর উপস্থিতি ছিল না বলে দাবি উঠেছিল। কোথাও বা কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে অসক্রিয়তার অভিযোগ উঠেছে। ষষ্ঠ দফায় ১০০ শতাংশ বুথেই বাহিনী থাকবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন বিশেষ পুলিশ অবজার্ভার বিবেক দুবে। তবে কোথাও কতজন বাহিনী মোতায়েন থাকবে সেই বিষয়ে স্পষ্ট করে কিছু জানানো হয়নি নির্বাচন কমিশনের তরফে। সূত্রের খবর, ৭৪৩ কোম্পানি আধাসেনা বুথে উপস্থিত থাকবে। বাকি ২৭ কোম্পানি স্ট্রংরুমের দায়িত্বে থাকবে। ষষ্ঠ দফায় প্রত্যেক কুইক রেসপন্স টিম পিছু একজন করে ডেপুটি কম্যান্ডার থাকবেন। একনজরে দেখে নেওয়া যাক কোন জেলায় কত বাহিনী থাকবে…

তমলুক
মাইক্রো অবজারভার ৫৬০
ভিডিও ক্যামেরা ১৭৫
সিসিটিভি ৩৫
ওয়েব কাস্টিং ৩০০
মোট ১০৭০

কাঁথি
মাইক্রো অবজারভার ৫৬০
ভিডিও ক্যামেরা ১৭৫
সিসিটিভি ৩৫
ওয়েব কাস্টিং ৩০০
মোট ১০৭০

ঘাটাল
মাইক্রো অবজারভার ৭২২
ভিডিও ক্যামেরা ২৫
সিসিটিভি ৭১২
ওয়েব কাস্টিং ২৯৯
মোট ১৭৫৮

ঝাড়গ্রাম
মাইক্রো অবজারভার ৪৬০
ভিডিও ক্যামেরা ৫৭
সিসিটিভি ২৫৮
ওয়েব কাস্টিং ২৬৯
মোট ১০৪৪

মেদিনীপুর
মাইক্রো অবজারভার ৬৪৭
ভিডিও ক্যামেরা ২৫
সিসিটিভি ৪৭২
ওয়েব কাস্টিং ৩০০
মোট ১৪৪৪

পুরুলিয়া
মাইক্রো অবজারভার ৩৮০
ভিডিও ক্যামেরা ১০৩
সিসিটিভি ৬৬
ওয়েব কাস্টিং ২৮০
মোট ৮২৯

বাঁকুড়া
মাইক্রো অবজারভার ৪০০
ভিডিও ক্যামেরা ২১০
সিসিটিভি ১০৫
ওয়েব কাস্টিং ৩০০
মোট ১০১৫

বিষ্ণুপুর
মাইক্রো অবজারভার ৪১৭
ভিডিও ক্যামেরা ২৪৬
সিসিটিভি ১৩৮ওয়েব কাস্টিং ৩০০
মোট ১১০১