Date : 2024-02-24

Social News Update : ফুটপাতে মিত্রবিন্দার পাঠশালা

নাজিয়া রহমান, সাংবাদিক : ওরা ফুটপাতবাসী। ফুটপাতেই কাটে ওদের শৈশব। পড়াশোনার ইচ্ছে থাকলেও অনেক সময় তা হয়ে ওঠে না। তবে সার্দান এভিনিউ এলাকার পথশিশুদের পড়াশোনার ভার নিয়েছেন ওই এলাকার এক মহিলা। যার পাঠশালায় জীবনে বড় হওয়ার স্বপ্ন দেখছে একগুচ্ছ পথশিশু।


Social News

ফুটপাতেই কাটে ওদের জীবন। শীত গ্রীষ্ম বর্ষা কোন ঋতুকেই ডরায় না ওরা। তবে ২০২০ সালে পেটে ক্ষিদের জ্বালার আতঙ্ক জাগিয়েছিল করোনা। করোনার হাত থেকে দেশের মানুষকে বাঁচাতে লকডাউন করা হয়। যে লকডাউন বিভীষিকার রূপ নেয় এই ফুটপাতবাসী মানুষদের জীবনে। পড়াশোনা তো দূর অস্ত। কচি কচি বাচ্চাদের মুখে দুবেলা অন্ন কি ভাবে জুটবে সেনিয়ে চিন্তায় কাটত ফুটপাতবাসীদের। এই করোনা মহামারির সময় সার্দান এভিনিউ, গড়িয়াহাট, টালিগঞ্জ এলাকার অসহায় শিশুদের মুখে খাবার তুলে দিতে এগিয়ে আসেন সার্দান এভিনিউ এর বাসিন্দা মিত্রবিন্দা ঘোষ। শুধু খাবার নয়, এই ফুটপাতের শিশুদের শিক্ষা দেওয়ারও সিদ্ধান্ত নেন তিনি। রঙ পেনন্সিল, বই খাতা এইগুলি দিয়ে ফুটপাতের শিশুদের পড়ার প্রতি আগ্রহ জন্মানোর প্রয়াস শুরু করেন তিনি। সেই প্রয়াসেই সার্দান এভিনিউ এর এক পার্কে খুলেছেন পাঠশালা।

মিত্রবিন্দার এই স্কুলের এক ছাত্রী আগামী বছর মাধ্যমিক দেওয়ার জন্য নিজেকে তৈরি করছে। ছাত্রীটি বড় হয়ে শিক্ষিকা হয়ে দুঃস্থ মানুষের পাশে দাঁড়াতে চাই।

৩ টি শিশু নিয়ে শুরু হয়েছিল এই স্কুলটি। এখন এই পাঠশালায় পড়ুয়ার সংখ্যা ৩০। নিয়মিত ক্লাস থেকে শুরু করে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সবকিছুই বিনামূল্যে শেখানো হয়।

শুধুমাত্র শিক্ষা দান নয়। শিশুদের শারীরিক অসুস্থতা হলে তাঁরও দেখভাল করেন মিত্রবিন্দা। এতে খুশি পথশিশুদের মা-বাবারাও।

মিত্রবিন্দার সঙ্গে এই সামাজিক কাজে যোগ দিয়েছে কয়েকজন কলেজ পড়ুয়াও। যারা নিজেদের ফাঁকা সময়ে এই পাঠশালায় ক্লাস করাতে আসেন।