Date : 2022-10-06

নিঃশব্দ পৃথিবীতে শিল্পের পথচলা

শাহিনা ইয়াসমিন, রিপোর্টার : বিশেষ ক্ষমতাসম্পন্ন বহু কিশোর-কিশোরী আছে যাদের মধ্যে প্রতিভা রয়েছে। কিন্তু সঠিক শিক্ষক না পাওয়ার ফলে নিজের প্রতিভা ফুটিয়ে তুলতে পারেন না। এমনই এক কিশোরী আছে যে কথা বলতে পারে না ও কানে শুনতে পায় না। কিন্তু তার মধ্যে প্রতিভার অভাব নেই।

বিশেষ ক্ষমতাসম্পন্ন এই কিশোরীর নাম রিয়া দাস। ১৫ বছরের রিয়া কথা বলতে যেমন পারে না তেমন কানেও শুনতে পায় না। বরাহনগর মোহন গালর্স স্কুলে ক্লাস নাইনে পড়ে রিয়া। জন্ম থেকেই রিয়া কথা বলতে পারে না। তবে তার অদম্য ইচ্ছাশক্তি তাকে নিয়ে গেছে অন্য জগতে। সে চাইল্ড স্যান্ড আর্টিস্ট। তার কথা বলতে ও শুনতে অসুবিধা হয়। তার পরেও নিজের চেষ্টায় বালি নিয়ে শিল্প কর্মের ক্ষমতা রাখে। রিয়ার এই চেষ্টার পিছনে যে মানুষটির অবদান রয়েছে তিনি হলেন স্যান্ড আর্টিস্ট কৌশিক বসু। তার কাজের ফাঁকে যখনই সময় পান কৌশিকবাবু রিয়াকে প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকেন। শুধু কৌশিক বসু নন। তাঁর সঙ্গে বেশ কয়েকজন কাজ করছেন এই ধরণের বিশেষ ক্ষমতাসম্পন্ন মানুষের পাশে দাঁড়ানোর। তার মধ্যে শিল্পী বিশ্বজিত্ সরকার একজন।

বাবা-মার ক্ষমতা নেই রিয়াকে নিজের পায়ে দাঁড় করানোর। কারণ অর্থনৈতিক অবস্থা খুবই খারাপ। তবে সব প্রতিকূলতাকে দূরে ঠেলে রিয়া লড়াই করে যাচ্ছে। কৌশিক বসু ও তার দলের উদ্যোগে রিয়ার কানে একটা মেশিন বসানো হয়েছে। যাতে সে শুনতে পায়। শুধু স্যান্ড আর্টে নয়, নাচেও সমান পারদর্শী রিয়া। শিক্ষক কৌশিক বসু ছাড়াও রিয়ার বান্ধবী সারণ্যা ঘোষ তাকে সমান সাহায্য করে। অপারেশন করলে রিয়া কথা বলতে পারবে এমনটাই বক্তব্য চিকিতসকের। তার জন্য যে অর্থ লাগবে তা জোগাড়ের চেষ্টা করছেন কৌশিকবাবুরা। কথা বলার আপ্রাণ চেষ্টা করে রিয়া। তার স্বপ্ন সেও কথা বলতে পারবে অন্যদের মতো।